আজকের দিন তারিখ ৯ মার্চ, ২০২১, মঙ্গলবার, ২৪ ফাল্গুন, ১৪২৭
সর্বশেষ সংবাদ
সারাদেশ দৌলতদিয়ায় জেলের জালে ১০ কেজি ওজনের বোয়াল মাছ

দৌলতদিয়ায় জেলের জালে ১০ কেজি ওজনের বোয়াল মাছ


পোস্ট করেছেন: Dinersheshey | প্রকাশিত হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ১, ২০২১ , ১২:৩৯ অপরাহ্ণ | বিভাগ: সারাদেশ


গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি : রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়ার পদ্মা নদীতে গতকাল রোববার বিকেলে স্থানীয় জেলেদের জালে ১০ কেজি ওজনের এই বোয়াল মাছ ধরা পড়েছে। পরে স্থানীয় ব্যবসায়ী চান্দু মোল্লা ২৩ হাজার টাকায় কিনে তা ২৪ হাজার টাকায় বিক্রি করেন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের দৌলতদিয়ার পদ্মা নদীতে গতকাল রোববার বিকেলে স্থানীয় জেলেদের জালে ১০ কেজি ওজনের এই বোয়াল মাছ ধরা পড়েছে। পরে স্থানীয় ব্যবসায়ী চান্দু মোল্লা ২৩ হাজার টাকায় কিনে তা ২৪ হাজার টাকায় বিক্রি করেনছবি: প্রথম আলো রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার পদ্মা নদীতে স্থানীয় জেলেদের জালে ১০ কেজি ওজনের একটি বোয়াল মাছ ধরা পড়ে। গতকাল রোববার বিকেলে দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ এলাকার জেলে জয়নাল সরদারের জালে মাছটি ধরা পড়ে।
স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা বলেন, দৌলতদিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাটের অদুরে কার্গোঘাট এলাকায় গতকাল বিকেলে নদীতে জাল ফেলেন জেলে জয়নাল সরদার ও তাঁর লোকজন। প্রথমবার জাল তুলে তেমন কিছুই পাননি। তবে হতাশ হননি তাঁরা। দ্বিতীয় দফায় নদীতে জাল ফেলার কিছুক্ষণ পর তুলতে গেলে বড় এক ঝাঁকি দেয়। জাল টেনে নৌকায় তোলার পর তিনি বড় একটি বোয়াল মাছ দেখতে পান। দ্রুত মাছটি নিয়ে আসেন দৌলতদিয়া ঘাট মাছবাজারে। সেখানে ওজন দিয়ে তাঁরা দেখতে পান ১০ কেজি ওজনের বোয়াল মাছ। পরে মাছটি সন্ধ্যার আগে দৌলতদিয়া বাইপাস সড়কের পাশে দুলাল মণ্ডলের আড়তে বিক্রির উদ্দেশ্যে আনলে ফেরিঘাটের মাছ ব্যবসায়ী মো. চান্দু মোল্লা অন্য ব্যবসায়ীদের সঙ্গে নিলামে অংশ নিয়ে মাছটি ২ হাজার ৩০০ টাকা কেজি দরে ২৩ হাজার টাকায় কিনে নেন। পরে তিনি মাছটি ফেরিঘাটের পন্টুনের সঙ্গে রশি দিয়ে বেঁধে রাখেন। তিনি বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ করার পর ২ হাজার ৪০০ টাকা কেজি দরে মোট ২৪ হাজার টাকায় ঢাকার এক ব্যবসায়ীর কাছে মাছটি বিক্রি করেন। এ সময় মাছটি দেখতে স্থানীয় লোকজন ভিড় করেন। মাছ ব্যবসায়ী চান্দু মোল্লা বলেন, ‘অনেক দিন হলো বড় মাছ পাই না। আজ (রোববার) মাছটি পেয়ে ভালোই লাগছে। এ ছাড়া এখন নদীতে মাঝেমধ্যে বড় বড় মাছ ধরা পড়ছে। মাছ ধরা পড়ার পর জেলেরা বিক্রি করতে আনলে আমরা আড়তের মাধ্যমে কিনে থাকি। পরবর্তী সময়ে বেশি লাভের আশায় ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ করে বিক্রি করি।’