আজকের দিন তারিখ ৬ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার, ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বিনোদন গায়িকা না হলে জীবনে কী পেশা বেছে নিতেন আশা ভোঁসলে!

গায়িকা না হলে জীবনে কী পেশা বেছে নিতেন আশা ভোঁসলে!


পোস্ট করেছেন: dinersheshey | প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ৯, ২০২২ , ৫:৪৮ অপরাহ্ণ | বিভাগ: বিনোদন


দিনের শেষে ডেস্ক :  ৮৯ বছরে পা দিলেন গায়িকা আশা ভোঁসলে। তার কণ্ঠ এবং গানের ভক্ত অগুণতি। আলাদা করে তাকে পরিচয় করানোর কোন প্রয়োজন নেই। শুধু গায়িকাই নন, দুর্দান্ত রান্নাও করতে পারেন তিনি। তার হাতের রান্না খেয়ে মুগ্ধতার কথা প্রকাশ করেছেন অনেকেই। ৮ সেপ্টেম্বর ১৯৩৩ সালে সাংলিতে জন্মগ্রহণ করেন আশা। তিনি একজন প্লেব্যাক গায়িকা, উদ্যোক্তা এবং অভিনেত্রীও। গায়িকার ঘনিষ্ঠরা অনেকেই জানেন, দুর্দান্ত রান্না করতে পারেন তিনি।

হিন্দি সিনেমার কিংবদন্তি গায়িকা লতা মঙ্গেশকরের বোন আশা ভোঁসলের জীবনে অনেক উত্থান-পতন ছিল। শৈশবটা মোটেই সুখের ছিল না তার। গায়িকা হিসেবে নিজের জায়গা তৈরি করা আশার পক্ষে সহজ ছিল না। আশার জীবনের গল্প আমরা সবাই কমবেশি শুনেছি, কিন্তু তার রান্নার শখ নিয়ে তেমন কোনও আলোচনা শোনা যায়নি।

আশা ভোঁসলের কণ্ঠ যতটা সুন্দর, রান্নার গুনমুগ্ধের সংখ্যাও রয়েছে প্রচুর। একাধিক মিডিয়া রিপোর্ট অনুসারে, আশা তাই রান্না করতে খুব ভালোবাসেন। অনেক তারকা তার হাতে তৈরি কড়াই মাংস এবং বিরিয়ানি পছন্দ করেন। একটি সাক্ষাতকারে, প্রবীণ গায়িকা নিজেই বলেছিলেন, তিনি গায়িকা না হলে নিশ্চিতভাবে রাঁধুনি (শেফ) হতেন।

১৯৪৩ সালে গানের কেরিয়ার শুরু করেন আশা ভোঁসলে। ২০০০ সালে দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কার এবং ২০০৮ সালে পদ্মবিভূষণ সম্মানে সম্মানিত তিনি। ১২ হাজারেরও বেশি গানের রেকডিং করেছেন গায়িকা।

আশা ভোঁসলে একটি চেইন রেস্তোরাঁর মালিক। কিংবদন্তি গায়িকার দুবাই ও কুয়েতে ‘আশা’স নামে রেস্তোরাঁ রয়েছে। এছাড়া আবুধাবি, দোহা, বাহরাইনেও তাঁদের রেস্তোরাঁ রয়েছে। এই রেস্তোরাঁয় ভারতীয় খাবার বিশেষভাবে পরিবেশন করা হয়। শুধু তাই নয়, আশা নিজেই সেখানকার শেফদের নিখুঁত স্বাদ এবং গন্ধের জন্য প্রশিক্ষণ দেন। আশার রেস্টুরেন্টের গল্প এখানেই শেষ নয়। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বাবুর্চি রাসেল স্কট যুক্তরাজ্যের জন্য আশা ব্র্যান্ডের স্বত্ব কিনেছেন। এর আওতায় ‘আশা’ নামে প্রায় ৪০টি রেস্তোরাঁ খোলার পরিকল্পনা রয়েছে।

আশা ভোঁসলের ব্যক্তিগত জীবনের কথা বলতে গেলে, তিনি দু-বার বিয়ে করেছেন। প্রথম বিয়ে হয়েছিল গণপত রাওয়ের সঙ্গে, যিনি ছিলেন লতা মঙ্গেশকরের পিএ। গায়িকার পুরো পরিবার এই বিয়ের বিপক্ষে ছিল, কিন্তু জেদ করেই নিজের থেকে দ্বিগুণ বয়সী গণপতকে বিয়ে করেন আশা। তাদের দুই পুত্র এবং এক কন্যা সন্তান রয়েছে। এরপরে বিখ্যাত সঙ্গীতশিল্পী আর ডি বর্মণকে বিয়ে করেন আশা ভোঁসলে। আশার থেকে ৬ বছরের ছোট ছিলেন বর্মন।