আজকের দিন তারিখ ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার, ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জাতীয় ষষ্ঠধাপের ৬৩৭টি ইউপির ফল: আওয়ামী লীগ ৩৭২, বিএনপি ৫৯, অন্যান্যরা জয়ী ২০৬টিতে

ষষ্ঠধাপের ৬৩৭টি ইউপির ফল: আওয়ামী লীগ ৩৭২, বিএনপি ৫৯, অন্যান্যরা জয়ী ২০৬টিতে


পোস্ট করেছেন: admin | প্রকাশিত হয়েছে: জুন ৫, ২০১৬ , ১১:৩৭ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: জাতীয়


UP - Copy (5) - Copy - Copy - Copy - Copy - Copyকাগজ অনলাইন ডেস্ক: ৬ষ্ঠধাপের ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচনেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বেশিরভাগ ইউপিতে জয় পেয়েছে। বিগত পাঁচধাপের মতো নির্বাচনে বরাবরই দাপট ছিল আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের।

শনিবার অনুষ্ঠিত ৬৯৮টি ইউপির মধ্যে প্রাপ্ত ৬৩৭টি ইউপির মধ্যে আওয়ামী লীগ ৩৭২টি, বিএনপি ৫৯টি, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১৫৮টি, জাতীয় পার্টি-জাপা ১৩টি, জাতীয় পার্টি-জেপি ১, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন ১টি, জেএসএস ২৪টি, ইউপিডিএফ ৮টি, জাসদ ১টি ইউপিতে জয়ী হয়েছেন।

এই ধাপে ২৮জন চেয়ারম্যান প্রার্থী বিনাভোটে আগেই জয়ী হয়ে আছেন। গোলযোগ থাকার কারণে বেশকয়েকটি ইউপির ফলাফল ঘোষণা স্থগিত রয়েছে।

বিগত পাঁচধাপে ৩ হাজার ৩৮৯টি ইউপিতে ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এর মধ্যে ৯৬টি ইউপির ভোট গোলযোগের কারণে স্থগিত আছে। ৩ হাজার ২৯৩টি ইউপির মধ্যে আওয়ামী লীগ ২ হাজার ২৪১টিতে জয় পায়, যার মধ্যে বিনাভোটে আছে ১৮২ জন। বিএনপি ৩০৫টি, জাতীয় পার্টি-জাপা ৪০টি, জাতীয় পার্টি-জেপি ৪টি, জাসদ ৭টি, ওয়ার্কার্স পার্টি ৩, জমিয়তে ইসলামী ১টি, ইসলামী আন্দোলন ২টি, জাকের পার্টি ১, স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬৮৯টি ইউপিতে জয়লাভ করেছে। নির্বাচন কমিশনের হিসাবে, প্রথম ধাপে ৭৪ শতাংশ, দ্বিতীয় ধাপে ৭৮ শতাংশ, তৃতীয় ধাপে ৭৬ শতাংশ, চতুর্থ ধাপে ৭৭ শতাংশ এবং পঞ্চমধাপে ভোট পড়ে ৭৬ দশমিক ৫৪ শতাংশ।

আমাদের প্রতিনিধি ও সংবাদদাতাদের পাঠানো ফলাফল তথ্য নিচে দেয়া হলো-

ঢাকার সাভারে ১১টিতে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র ১টিতে জয়ী

সাভারে জয়ী আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন,আমিনবাজারে মো. আনোয়ার হোসেন, তেঁতুলঝোড়ায় ফখরুল আলম সমর (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়),ভাকুর্তায় আলহাজ আনোয়ার হোসেন, বিরুলিয়ায় সাইদুর রহমান সুজন, বনগাঁওয়ে সাইফুল ইসলাম, শিমুলিয়ায় আজহারুল ইসলাম সুরুজ, ধামসোনায় সাইফুল ইসলাম, ইয়ারপুরে সৈয়দ আহমেদ মাস্টার, আশুলিয়ায় সাহাবুদ্দিন মাতবর ও পাথালিয়ায় পারভেজ দেওয়ান। কাউন্দিয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী আতিকুর রহমান খান শান্ত জয়ী হয়েছেন। এছাড়া

সাভার সদর ইউপির নির্বাচন স্থগিত রয়েছে।

নরসিংদীর মনোহরদীতে আওয়ামী লীগের ৮, স্বতন্ত্র ১টিতে জয়ী

নরসিংদীর মনোহরদীতে চেয়ারম্যান পদে জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, চন্দনবাড়ীতে আব্দুর রউফ হিরন, গোতাশিয়ায় আব্দুল কাদির, লেবুতলায় জাকির হেসেন আকন্দ, বড়চাপায় অধ্যাপক এম সুলতান উদ্দিন, শুকুন্দিতে সাদিকুর রহমান শামিম, দৌলতপুরে হাদিউল ইসলাম, একদুয়ারিয়ায় আনিছুজ্জামান মিটুল ও চালাকচরে ফখরুল মান্নান মুক্তু। জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেন, মোবারক হোসেন খান কনক। সীমানা জটিলতা সংক্রান্ত কারণে চরমান্দালিয়া, খিদিরপুর ও কৃষ্ণপুর ইউপিতে নির্বাচন স্থগিত রাখা হয়েছে।

ডামুড্যা ও ভেদরগঞ্জে আওয়ামী লীগ ১০ ও স্বতন্ত্র ৩টিতে জয়ী

ডামুড্যা উপজেলা চেয়ারম্যান পদে জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, দারুল আমান ইউপিতে মোক্তার হোসেন খান ,সিড্যায় হাজি আলাউদ্দিন আমীন, পূর্বডামুড্যায় মাসুদ পারভেজ লিটন, শিধলকূড়ায় জানে আলম খোকন, ধানকাটিতে আবদুর রাজ্জাক পিন্টু। ইসলামপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিন উদ্দিন ঢালী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। ভেদরগঞ্জ উপজেলায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, মহিষার ইউপিতে হাজি নুরুল ইসলাম সিকদার, রামভদ্রপুরে বিপ্লব সিকদার (বিনা প্রতিদ্বন্দিতায়), চরভাগায় বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান সিকদার, সখিপুরে কামরুজ্জামান মানিক, উত্তর তারাবুনিয়ায় ইউনুস সরকার, দক্ষিণ তারাবুনিয়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় শাহজালাল মাল, আর্শিনগরে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় ডাঃ সামচুরদ্দোহা রতন, ডিএম খালিতে মাস্টার জসিম উদ্দিন মাদবর ও চরকুমারিয়ায় বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় মোজাম্মেল হক মোল্যা। চরসেন্সাসে স্বতন্ত্র জিতু মিয়া বেপারী ও নারায়ণপুরে স্বতন্ত্র নাসির উদ্দিন তালুকদার জয়ী হয়েছেন। অপরদিকে স্থগিত থাকা গোসাইর হাট উপজেলার নাগেরপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের মহসিন মাদবর বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

শেরপুরের শ্রীবরদিতে আওয়ামী লীগ ২, বিএনপি ১ ও স্বতন্ত্র ১টি

জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, রানীশিমুলে মাসুদ রানা ও তাতিহাটিতেআসাদুল্লাহ বিল্লাল হোসেন। আর গোশাইপুরে বিএনপির এস এম জুবায়েল হোসেন ও ভেলুয়াতে স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান নির্বাচিত হয়েছেন।

নেত্রকোনায় আওয়ামী লীগ ৫টি, স্বতন্ত্র ৫টি ও বিএনপি ২টিতে জয়ী

নেত্রকোনা সদর উপজেলায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, সিংহের বংলায় আব্দুর রহিম, মেদনিতে জিল্লুর রহমান খান নোমান, মৌগাতিতে মোস্তাফিজুর রহমান খান, ঠাকুরাকোনায় আব্দুর রাজ্জাক এবং দক্ষিণ বিশিউড়ায় আবু বকর সিদ্দিক। বিএনপির বিজয়ী প্রার্থীরা হচ্ছেন, আমতলায় শফিউল্লাহ এবং রৌহায় শফিকুল ইসলাম বাতেন। বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, চল্লিশাতে আব্দুল জব্বার ফকির, কাইলাটিতে আনোয়ার হোসেন, লক্ষিগঞ্জে এসএম শফিকুল কাদের সুজা, কে-গাতিতে এ আর আলী আজগর খান শারিফ ও মদনপুরে ফরিদ আহমেদ ফকির।

ফরিদপুরের নগরকান্দায় আওয়ামী লীগ ৩, বিএনপি ১ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৫টিতে জয়ী

নগরকান্দায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, ডাঙ্গীতে কাজী আবুল কালাম, ফুলসুতীতে আরিফ হোসেন ও কোদালিয়ায় মিজানুর রহমান। বিএনপি প্রার্থী হাবীবুর রহমান তালুকদার লস্করদিয়ায় জয়ী হয়েছেন। আর জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, চরযশোরদীতে আরিফুর রহমান, কাইচাইলে কবীর হোসেন, পুরাপাড়ায় আব্দুস সুবহান মিয়া, রামনগরে আবদুল কুদ্দস ফকির ও তালমাতে আবু শহীদ মিয়া।

কিশোরগঞ্জে আওয়ামী লীগ ১১, বিএনপি ৬, জাপা ২ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ১৩ ইউপিতে জয়ী

ইটনা উপজেলা জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, বাদলায় আ. গণি, রায়টুটিতে মনোয়ার হোসেন মিল্কী ও বড়িবাড়িতে নাজমুল আলম। জয়ী বিএনপির প্রার্থীরা হলেন, ইটনা সদরে নূরুল ইসলাম, জয়সিদ্ধিতে মনির উদ্দিন, মৃগায় কামরুল হাসান ও চৌগংগায় আব্দুল আলী। জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, এলংজুরিতে গোলাপ মিয়া ও ধনপুরে হরনাথ দাস। করিমগঞ্জ উপজেলায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, কিরাটনে. ইবাদুর রহমান ও নিয়ামতপুরে মখদুম করিম তন্ময়। জয়ী বিএনপির প্রার্থী হলেন, গুন্ধরে নাজমুল সাকির। জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. রুহুল আমিন কাজী নোয়াবাদে জয়ী হয়েছেন। জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, জাফরাবাদে সাইফউদ্দিন ফকির, কাদিরজঙ্গলে ফজুলর রহমান, বারঘরিয়ায় আইউব উদ্দিন, সুতারপাড়ায় হারুণ-অর-রশীদ, জয়কায় মো. আশরাফউদ্দিন, গুজাদিয়ায় মো. রফিকুল ইসলাম। দেহুন্দা ইউনিয়নের একটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত থাকায় ফলাফল ঘোষিত হয়নি। তাড়াইলে জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন. তালজাঙ্গায় সেলিম খান, জাওয়ারে জিয়াযুর রহমান, দিগদাইড়ে গোলাপ হোসেন ভূইয়া ও সাচাইলে কামরুজ্জামান মহাজন। বিএনপির সরিফউদ্দিন জুয়েল জিতেছেন রাউতিতে। জাতীয় পার্টির আসাদুজ্জামান মবিন জিতেছেন ধরায়। আর স্বতন্ত্র প্রার্থী হুমায়ুন কবির ভূইয়া জিতেছেন দামিহা ইউপিতে। হোসেনপুর উপজেলায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থী হলেন জিনারীতে আবদুস সালাম ফকির ও শাহেদলে শাহ্ মাহবুবুল হক। বাকি সবগুলোই জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, সিদলায় সিরাজ উদ্দিন, গোবিন্দপুরে শফিকুল ইসলাম হিমেল, আড়াইবাড়িয়ায় খুর্শিদ উদ্দিন ও পুমদীতে মাহাবুবুল হাসান।

টাঙ্গাইলে আওয়ামী লীগ ১৬, বিএনপি ৪ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৬টিতে জয়ী

ঘাটাইলে জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, ঘাটাইল ইউনিয়নে হায়দার আলী, লোকেরপাড়ায় শরিফ হোসেন ও আনেহলা ইউপিতে তালুকদার শাহজাহান। জয়ী বিএনপি প্রার্থীরা হলেন, দেউলাবাড়ীতে রফিকুল ইসলাম খান, জামুরিয়ায় ইখলাক হোসেন খান শামীম ও দিঘলকান্দিতে নজরুল ইসলাম। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, দিগড়ে আবুল কালাম আজাদ মামুন ও দেওপাড়ায় মাইন উদ্দিন তালুকদার। টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, গালাতে রাজকুমার সরকার, ঘারিন্দায় রুহুল আমীন খান, হুগড়ায় তোফাজ্জেল হোসেন খান, করটিয়ায় খালেকুজ্জামান চৌধুরী, মগড়ায় আজহারুল ইসলাম। জয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন, বাঘিলে রফিকুল ইসলাম সোহাগ, দাইন্যাতে লাভলু মিয়া ও পোড়াবাড়ীতে আজমত আলী। কালিহাতী উপজেলায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, বল্লায় হাজী চাঁদ মাহমুদ পাকির, দশকিয়ায় আব্দুল মালেক ভুইয়া (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), গোহাইলবাড়ীতে হযরত আলী তালুকদার, দুর্গাপুরে আনোয়ার হোসেন, কোকডহরাতে আকতারুজ্জামান, নারান্দিয়ায় শুকুর মাহমুদ, পাইকড়ায় আজাদ হোসেন ও সল্লায় আব্দুল আলীম। সহেদবপুরে মাসুদুর রহমান বিএনপি ও নাগবাড়ীতে মাকসুদুর রহমান সিদ্দিকী মিল্টন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছেন।

ময়মনসিংহে আওয়ামী লীগ ৩৫, বিএনপি ৪, জাপা ১ ও স্বতন্ত্র ১২ টি, দুটি স্থগিত

ভালুকা ৯টিতে আওয়ামী লীগ ও একটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বেসরকারীভাবে বিজয়ী। জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, উথুরা ইউপিতে বজলুর রহমান তালুকদার বাচ্চু, মেদুয়ারীতে জেসমিন নাহার, ভরাডোবাতে শাহ আলম তরফদার, বিরুনীয়ায় রেদোয়ান সারোয়ার রব্বানী, ভালুকায় সিহাব আমিন খান, মল্লিকবাড়ীতে আকরাম হোসেন, ডাকাতিয়ায় ছাইফুল ইসলাম, কাচিনায় মুশফিকুর রহমান লিটন, রাজৈতে নুরুল ইসলাম বাদশা। ধীতপুরে আশরাফুল আলম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছেন।

ত্রিশালে আওয়ামী লীগ ৩, বিএনপি ১, জাপা ১ স্বতন্ত্র ৫ স্থগিত ২। উপজেলায় জয়ী আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, বৈলরে মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, মঠবাড়ীতে কদ্দুস মন্ডল ও মোক্ষপুরে আবুল কালাম। জয়ী অন্যরা হলেন, ধানীখোলায় আসাদ উল্লাহ আসাদ (স্বতন্ত্র), কাঠালে দেলোয়ার হোসেন কামাল (জাপা), রামপুরে নাজমুল হক (স্বতন্ত্র), ত্রিশালে জাহিদ আমীন (স্বতন্ত্র), হরিরামপুরে আবু সাঈদ (স্বতন্ত্র), সাখুয়ায় শাহ মো. গোলাম ইয়াহিয়া (বিএনপি) ও আমিরাবাড়ীতে আনিছুর রহমান ভুট্রো (স্বতন্ত্র)। কানিহারীতে থাপন হালা কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর পক্ষের লোক জন ৬ টি ব্যালট বাক্স ছিনিয়ে নেওয়ায় ও বালিপাড়া ইউনিয়নে বিয়ারা পাটুলী উচ্চ বিদ্যালয় ও বিয়ারা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ২ প্রার্থীর কর্মী সমর্থকদের মাঝে সংঘর্ষের কারনে দুটি ইউনিয়নের ফলাফল স্থগিত রয়েছে।

গফরগাঁও উপজেলায় ১৫টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। নির্বাচিতরা হচ্ছেন রসুলপুর হাজী সাইফুল ইসলাম, বারবাড়িয়া আবুল কাশেম, চরআলগী মাসুদুজ্জাম, সালটিয়া নাজমুল হক ঢালী, যশোরা তারিকুল ইসলাম, রাওনা আবর হাসান শাহাবুল, মশাখালি মোস্তুফা কামাল মনি, গফরগাঁও শামসুল আলম খোকন, পাচবাগ শাহ কামরুল ইসলাম ফখরুল, উস্থি নজরুল ইসলাম তোতা, লংগাইর আব্দুল্লাহ আল আমিন বিল্পব, দত্তের বাজার রোখসানা পারভীন, পাইথল মো. আখতারুজ্জামান, নিগুয়ারী শাহাব উদ্দিন খান,টাঙ্গাব মোফাজ্জল হোসেন।

হালুয়াঘাটে আওয়ামী লীগ ৬ স্বতন্ত্র ৩ ও বিএনপি প্রার্থীরা ১টিতে জয়ী হয়েছেন। জয়ী হলেন, ভুবনকুড়ায় আলহাজ্ব এম সুরুজ মিয়া (আওয়ামী লীগ), জুগলীতে স্বতন্ত্র আলহাজ্ব মো. কামরুল ইসলাম, গাজিরভিটা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দেলোয়ার হোসেন। বিলডোরায় আওয়ামী লীগের জাহাঙ্গীর হোসেন, শাকুয়াইতে আলহাজ্ব নাজিম উদ্দিন স্বতন্ত্র, নড়াইলে সাইফুল ইসলাম (আওয়ামী লীগ), ধারাতে তোফায়েল আহমদ বিপ্লব (আওয়ামী লীগ), ধুরাইলে ওয়ারিছ উদ্দিন সুমন (আওয়ামী লীগ), আমতৈলে শফিকুর রহমান শফিক (বিএনপি) ও স্বদেশীতে ইরাদ হোসেন সিদ্দিকী (স্বতন্ত্র)।

ধোবাউড়া উপজেলায় জয়ীরা হলেন, দক্ষিন মাইজপাড়ায় ফজলুল হক (আওয়ামী লীগ), গামারিতলায় আনোয়ার হোসেন (স্বতন্ত্র), ধোবাউড়ায় এরশাদুল হক (স্বতন্ত্র), পোড়াকান্দুলিয়ায় স্বপন তালুকদার (স্বতস্ত্র), গোয়াতলায় জাকিরুল ইসলাম টুটন (বিএনপি), ঘোষগাঁওয়ে শামসুল হক (আওয়ামী লীগ), বাগবেরে ফরহাদ রব্বানী সুমন (বিএনপি)। গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরের বাটিকামারী ইউপিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী এবাদত মাতুব্বর জয়ী হয়েছেন।

রুপসায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী জয়ী

খুলনার রূপসা উপজেলার ঘাটভোগে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধন কুমার অধিকারী।

শৈলকুপায় ১০টি নৌকা ও ৪টি স্বতন্ত্র

ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলার আবাইপুরে হেলালউদ্দিন বিশ্বাস (স্বতন্ত্র), বগুড়ায় নজরুল ইসলাম (নৌকা), ধলহারাচন্দ্রায় মতিউর রহমান (নৌকা), দ্বিগনগরে জিল­ুর রহমান তপন (আওয়ামী লীগ), দুধসুরে সোয়েব জোয়দ্দার (নৌকা), মনোহরপুরে আরিফ রেজা মন্নূ (নৌকা), ফুলহরিতে জামিনুর রহমান বিপুল (নৌকা), হাকিমপুরে কামরুজ্জামান দীপু (নৌকা), কাচেরকোলে সালাহউদ্দিন জোয়দ্দার মামুন (নৌকা), মির্জাপুরে মকবুল হোসেন (স্বতন্ত্র), নিত্যানন্দপুরে ফারুক আহম্মেদ (স্বতন্ত্র), সারুটিয়ায় মাহমুদুল হাসান মামুন (নৌকা), ত্রিবেনীতে জহুরুল ইসলাম খান (স্বতন্ত্র) , উমেদপুরে সাত্তার হোসেন মোল­া (নৌকা)।

চৌগাছায় আওয়ামী লীগের ৫ জন, স্বতন্ত্র ৪ ও বিএনপি ২

যশোর জেলার চৌগাছা উপজেলার ফুলসারায় মেহেদী মাসুদ চৌধুরী (নৌকা), পাশাপোলে আবুল কাশেম (নৌকা), সিংহঝুলীতে মো ঃ বাদল (স্বতন্ত্র), ধুলিয়ানীতে আতিয়ার রহমান (স্বতন্ত্র), চৌগাছা সদরে রফিকুল ইসলাম (নৌকা), জগদীশপুরে তবিবর রহমান খান (নৌকা), পাতিবিলায় আতাউর রহমান লাল (বিএনপি), হাকিমপুরে মাসুদুল হাসান (বিএনপি), স্বরুপদহায় শেখ আনোয়ার হোসেন (স্বতন্ত্র), নারায়নপুরে জয়নাল আবেদীন মুকুল (নৌকা), সুখপুকুরিয়ায় তোতা মিয়া (স্বতন্ত্র)।

শার্শায় আওয়ামী লীগ ৭টি স্বতন্ত্র ৩টি বিজয়ী

শার্শা উপজেলার ডিহিতে হোসেন আলী (স্বতন্ত্র) নিজামপুরে আবুল কালাম (স্বতন্ত্র) উলাশীতে আয়নাল হক (আওয়ামী লীগ) গোগায় আব্দুর রশীদ (আওয়ামী লীগ), বাগআঁচড়ায় ইলিয়াস কবীর বকুল (আওয়ামী লীগ) শার্শায় সোহারাব হোসেন (আওয়ামী লীগ), বাহাদুরপুরে মিজানুর রহমান (আওয়ামী লীগ), কায়বায় হাসান ফিরোজ টিংকু (আওয়ামী লীগ), লক্ষনপুরে সালাউদ্দীন শান্তি (আওয়ামী লীগ) এবং পুটখালীতে মাষ্টার হাদিউজ্জামান (স্বতন্ত্র)।

লোহাগড়ায় নৌকা ৪টি, স্বতন্ত্র ১টি

নড়াইল জেলার লোহাগড়া উপজেলার কোটাকোলে বিএম হেমায়েত হোসেন হিমু (নৌকা), লাহড়িয়ায় মো. দাউদ হোসেন (স্বতন্ত্র), লোহাগড়ায় সিকদার নজরুল ইসলাম (নৌকা), নলদীতে আবুল কালাম আজাদ (নৌকা), লক্ষ্মীপাশায় কাজী বনি আমিন (নৌকা), নোয়াগ্রামে, ।

মাগুরা সদর উপজেলার কুচিয়ামোড়ায় জাহাঙ্গীর হোসেন সিকদার (স্বতন্ত্র) বিজয়ী হয়েছেন।

রৌমারীতে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জেপি ১টি করে বিজয়ী

কুড়িগ্রাম জেলার রৌমারী উপজেলার যাদুরচরে সরবেশ আলী (বিএনপি), রৌমারীতে সহিদুল ইসলাম শালু (নৌকা), শৌলমারীতে হাবিবুর রহমান হাবিল (জাতীয় পার্টি-জেপি)।

গোবিন্দগঞ্জে ৪টি নৌকা, তিনটি স্বতন্ত্র

গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার দরবস্তে আরম শরিফুল ইসলাম জর্জ (নৌকা) গুমানীগঞ্জে জগলুল রশিদ রিপন (নৌকা), কামদিয়ায় মোশাহেদ হোসেন চৌধুরী বাবলু (নৌকা), কাটাবাড়ীতে রেজাউল করিম রফিক (স্বতন্ত্র), রাজাহারে আব্দুল লতিফ, সাপমারায় শাকিল আলম বুলবুল (স্বতন্ত্র), সাখাহারে তাহাজুল ইসলাম ভুট্ট (নৌকা), তালুককানুপুরে আতিকুর রহমান আতিক (স্বতন্ত্র) ।

ফুলছড়িতে জাপা ২টি, আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও স্বতন্ত্র ১টি করে

ফুলছড়ি উপজেলার এরেন্ডাবাড়ীতে আজিজুর রহমান (বিএনপি), ফুলছড়ি, গজারিয়ায় শামসুল আলম (নৌকা), কঞ্চিপাড়ায় আব্দুল হালিম (জাপা), উদাখালীতে আনোয়ার হোসেন (স্বতন্ত্র), উড়িয়ায় মো. বদিয়াজ্জামান (জাপা)।

সাঘাটায় নৌকা ৩টি, স্বতন্ত্র ৩টি, বিএনপি, জাপা ও জাসদ ১টি করে

সাঘাটা উপজেলার ভরতখালীতে শামসুল আজাদ শীতল (নৌকা), বোনারপাড়ায় ওয়ারেছ আলী প্রধান (নৌকা), হলদিয়ায় ইয়াকুব আলী (স্বতন্ত্র), জুমারবাড়ীতে রস্তুম আলী আকন্দ (জাসদ), কচুয়ায় মাহবুবুর রহমান (স্বতন্ত্র), কামালেরপাড়ায় শাহীনুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), পদুমশহরে তৌহিদুজ্জামান স্বপন (বিএনপি), সাঘাটায় মোশাররফ হোসেন (জাতীয় পার্টি -জাপা), মুক্তিনগরে আরশাদ আজিজ রোকন (নৌকা)।

বিরলে নৌকা ৪টি ও স্বতন্ত্র ১টি

দিনাজপুর জেলার বিরল উপজেলার বিরলের ধামইরে মোসলেম উদ্দীন (নৌকা), ভান্ডারায় মামুনূর রশীদ মামুন (নৌকা), মঙ্গলপুরে সেরাজুল ইসলাম (নৌকা), রাণীপুকুরে ফারুক আজম (নৌকা) ও শহরগ্রামে আব্দুর রহমান মুরাদ (স্বতন্ত্র)।

সৈয়দপুরে নৌকা ২টি, স্বতন্ত্র ২টি এবং বিএনপি ১টিতে বিজয়ী

নীলফামারী জেলার সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুরে প্রণবেশ বাগচি ওরফে দুলাল বাবু (স্বতন্ত্র), কামারপুকুরে রেজাউল করিম লোকমান (বিএনপি), খাতামধুপুরে জুয়েল চৌধুরী (স্বতন্ত্র), কাশিরাম বেলপুকুরে এনামুল হক চৌধুরী (নৌকা), বোতলাগাড়ীতে আল হেলাল চৌধুরী (নৌকা)।

নীলফামারী সদরে নৌকা

নীলফামারী সদর উপজেলার চাপড়াসরঞ্জানীতে খলিলুর রহমান সরকার (নৌকা)।

দেবীগঞ্জে আওয়ামী লীগ ৩, স্বতন্ত্র ২টি এবং বিএনপি ১টি

পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলার চেংঠী হাজরাডাংগায় অনিল কুমার (স্বতন্ত্র), দণ্ডপালে জামেদুল ইসলাম (স্বতন্ত্র), পামুলীতে ফজলে হায়দার (আওয়ামী লীগ), শালডাংগায় মো. মাসুম (আওয়ামী লীগ), সোনাহারে রহিমুল ইসলাম বুলবুল (বিএনপি), সুন্দরদীঘিতে পরেশ চন্দ (আওয়ামী লীগ)।

গঙ্গাচড়ায় ৩টি আওয়ামী লীগ, ৪টি জাতীয় পার্টি (এ) ও ৩টিস্বতন্ত্র

রংপুর জেলার গংগাচড়া উপজেলার নোহালীতে আবুল কালাম আজাদ টিটুল (নৌকা), মর্ণেয়ায় মোছাদ্দেক আলী (নৌকা), কোলকোন্দে সোহরাব আলী রাজু (নৌকা) এবং লক্ষ্মিটারীতে আব্দুল্লা আল হাদী (জাপা-এ), আলমবিদিতরে আফতাবুজ্জামান (জাপা-এ), গজঘন্টায় আজিজুল ইসলাম (জাপা-এ) এবং গঙ্গাচড়া সদরে আল সুমন আব্দুল্লাহ (স্বতন্ত্র), বেতগাড়িতে কামরুজ্জামান প্রামানিক (স্বতন্ত্র), বড়বিলে আফজালুল হক রাজু (স্বতন্ত্র) জয়লাভ করেছে। এছাড়া রংপুর সদর উপজেলার মমিনপুর ইউনিয়নে সুলতানা আক্তার কল্পনা (জাপা-এ) জয়লাভ করেছে।

মৌলভীবাজারে ৪ টি আওয়ামীলীগ, ২ টি বিএনপি, ৬ টি স্বতন্ত্র

সিলেট বিভাগের মৌলভীবাজার উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন পরিষদেরর মধ্যে ৪টিতে আওয়ামীলীগ, ২টিতে বিএনপি ও ৬ টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। খলিলপুর ইউনিয়নে অরবিন্দ পোদ্দার বাচ্চু (আওয়ামীলীগ ), মনুমুখ ইউনিয়নে আব্দুল হক শেফুল (স্বতন্ত্র), কামালপুর ইউনিয়নে ফয়ছল আহমদ (বিএনপি), আপার কাগাবলা ইউনিয়নে মোঃ আজির উদ্দিন (আওয়ামীলীগ), আখাইকুড়া ইউনিয়নে সেলিম আহমদ (স্বতন্ত্র), একাটুনা ইউনিয়নে আবু ছুফিয়ান, (আওয়ামীলীগ), চাদনীঘাট ইউনিয়নে আখলাই মিয়া (স্বতন্ত্র), কনকপুর ইউনিয়নে রেজা আহমদ চৌধুরী (স্বতন্ত্র), আমতৈল ইউনিয়ন রানা খান শাহীন (বিএনপি), নাজিরাবাদ ইউনিয়নে এনামুল হক রাজা (স্বতন্ত্র), মোস্তফাপুর ইউনিয়নে তাজুল ইসলাম তাজ (স্বতন্ত্র), গিয়াসনগর ইউনিয়ন, গোলাম মোস্তফা,(আওয়ামীলীগ)

সিলেটে ১০টি আওয়ামী লীগ, বিএনপি ৩, জাপা ১, স্বতন্ত্র ৭

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার ২টি ইউনিয়নে মধ্যে ডৌবাড়ি ইউনিয়নে বিএনপি মনোনীত আরিফ ইকবাল নেহাল ও লেঙ্গুড়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুর রহমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। সিলেটের জকিগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার উপজেলার ১৯টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০টিতে আওয়ামী লীগ, ২টিতে বিএনপি ও ১টিতে জাপা মনোনীত প্রার্থী চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন। এছাড়া ৬ টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। জকিগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৬টিতে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থী। অপর ৩ ইউনিইয়নে ১টিতে জাতীয় পার্টি এবং ২টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। আওয়ামীলীগ সমর্থিত বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন- বীরশ্রী ইউনিয়নে ইউনুছ আলী, কসকনকপুর ইউনিয়নে আব্দুর রাজ্জাক রিয়াজ, খলাছড়া ইউনিয়নে কবির আহমদ, জকিগঞ্জ সদরে খলিলুর রহমান, কাজলসার ইউনিয়নে জুলকার নাইন ও বারঠাকুরী ইউনিয়নে মহসিন মর্তুজা চৌধুরী টিপু। বাকি ৩ ইউনিয়নের মধ্যে সুলতানপুর ইউনিয়স্বেতন্ত্র প্রার্থী রফিকুল ইসলাম, মানিকপুর ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির মাহতাব আহমদ চৌধুরী এবং বারহাল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তাক আহমদ চৌধুরী বিজয়ী হয়েছেন।

বিয়ানীবাজার উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে ৪টিতে আওয়ামীলীগ এবং ২টিতে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। এছাড়া বাকি ৪ ইউনিয়নের স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হন। আওয়ামী লীগ মনোনীত বিজয়ী প্রার্থীরা হলেন- দুবাগবাজার ইউনিয়নে আব্দুস সালাম, শেওলা ইউনিয়নে জহুর উদ্দিন, চারখাই ইউনিয়নে মাহমুদ আলী ও মাথিউরা ইউনিয়নে শিহাব উদ্দিন। বিএনপি মনোনীত বিজয়ী দুইজন হলেন কুড়ারবাজার ইউনিয়নে আবু তাহের ও আলীনগর ইউনিয়নে মামুনুর রশীদ। এছাড়া লাউতা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থী গৌছ উদ্দিন এবং মোল­­াপুর ইউনিয়নে আব্দুল মান্নান ও তিলপাড়া ইউনিয়নে মাহবুবুর রহমান বিজয়ী হয়েছেন। উপজেলার মুড়িয়া ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল খায়ের।

হবিগঞ্জে ১৫ টি আওয়ামীলীগ, ২ টি বিএনপি, ৯ টি স্বতন্ত্র এবং ১ টি জাপা

হবিগঞ্জের ২৭টি ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিজয়ী প্রার্থীরা হচ্ছেন-সদর উপজেলার তেঘরিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মো. আনু মিয়া, রিচি ইউনিয়নে বিএনপির মিয়া মো. ইলিয়াছ, পইল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র সৈয়দ মইনুল হক আরিফ, নিজামপুর আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী তাজ উদ্দিন, শায়েস্তাগঞ্জ আওয়ামী লীগ বুলবুল খান, লস্করপুর আওয়ামী লীগ মাহবুবুর রহমান হিরো, লুকড়া আওয়ামী লীগ ফরহাদ আহমেদ আব্বাস, রাজিউড়া আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী শেখ কামাল, গোপায়া আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী আক্তার হোসেন। বানিয়াচং দক্ষিণ-পশ্চিম আওয়ামী লীগ রেখাছ মিয়া।

চুনারুঘাট উপজেলার উবাহাটা ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ রজব আলী, চুনারুঘাট সদর বিএনপি সৈয়দ লিয়াকত হাসান, গাজীপুর আওয়ামী লীগ হুমায়ূন কবির, আহমদাবাদ আওয়ামী লীগ আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু, দেওরগাছ আওয়ামী লীগ সামছুন্নাহার, পাইকপাড়া আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী শামীম, শানখলা আওয়ামী লীগ ফজলুর রহমান, সাটিয়াজুড়ি আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী আব্দুর রশিদ, রাণিগাও স্বতন্ত্র নূরুল মোমিন চৌধুরী, মিরাশি স্বতন্ত্র রফিক উদ্দিন।

বাহুবল উপজেলার স্নানঘাট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ফেরদৌস আলম, পুটিজুরী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সামছুদ্দিন তারা মিয়া, সাতকাপন ইউনিয়নে জাতীয় পার্টি শাহ আব্দাল মিয়া, বাহুবল সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ আজমল হোসেন চৌধুরী, লামাতাশি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ হাবিবুর রহমান চৌধুরী টেনু, মিরপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সাইফুদ্দিন লিয়াকত, ভাদেশ্বর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ কামরুজ্জামান বশির।

সুনামগঞ্জে আওয়ামী লীগ ১১, স্বতন্ত্র ১১, বিএনপি ৫ ও জাপা ১

সুনামগঞ্জ জেলার বিশ্বম্ভপুর উপজেলার- বাদাঘাট (দঃ) জাতীয় পার্টির এরশাদ মিয়া, ধনপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগে রফিকুল ইসলাম ,সলুকাবাদ ইউনিয়ন স্বতন্ত্র প্রার্থী রওশন আলী, ফতেপুর স্বতন্ত্র রনজিত চৌধুরী রাজন, পলাশ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল কাইয়ুম মাস্টার ।

জামালগঞ্জ উপজেলার বেহেলী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী অসীম চন্দ তালুকদার, ভীমখালী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী দুলাল মিয়া, ফেনারবাক ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ প্রার্থী করোনা সিন্দু তালুকদার, সাচনাবাজার ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ প্রার্থী রেজাউল করিম শামিম।

জগন্নাথপুর উপজেলায় রানীগঞ্জ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ প্রার্থী শহীদুল ইসলাম রানা, তাহিরপুর উপজেলার বালিজুরী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র আবদুল জহুর, শ্রীপুর (দক্ষিণ ) ইউনিয়নে আওয়আমীলীগ প্রার্থী বিশ্বজিত্ সরকার, বড়দল (দক্ষিণ) ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী আজহার আলী, তাহিরপুর সদর ইউনিয়নে বিএনপির বোরহার উদ্দীন, বাদাঘাট (উঃ) স্বতন্ত্র প্রার্থী আফতাব উদ্দিন, বড়দল (উঃ) ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থী আবুল কাশেম, শ্রীপুর (উত্তর) ইউনিয়নে বিএনপির প্রার্থী ফখরুল আলম ।

ধর্মপাশা উপজেলার- ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী সেলিম আহমেদ, বংশীকুন্ডা (উত্তর) ইউনিয়নে বিএনপির বিল্লাল হোসেন, বংশীকুন্ডা (দঃ) ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের আদিম মাহমুদ, জয়শ্রী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের সঞ্জয় রায় চৌধুরী, শৈলবরশ ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী নূর হোসেন, পাতারকুটি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের ফেরদৌস রহমান, রাজাপুর (উ) ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আমানুর রহমান, সরাজাপুর (দ) আওয়ামীলীগের ফরহাদ আহমেদ, মধ্যনগর ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী প্রবীর বিজয় চৌধুরী ও চামারদারি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকিরুল আহমেদ মান্না বিজয়ী হয়েছে।

পিরোজপুরে আওয়ামী লীগ-৬, স্বতন্ত্র-১

পিরোজপুর জেলায় অনুষ্ঠিত শেষ ধাপে সাতটি ইউনিয়নের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ছয় জন ও স্বতন্ত্র একজন নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচিতরা হলেন সদর উপজেলার দুর্গাপুর-মোঃ চাঁন মিয়া মাঝি, শংকরপাশা-তোফাজ্জেল হোসেন মল্লিক স্বপন (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়) ও সিকদার মল্লিক-এডভোকেট শহীদুল ইসলাম হাওলাদার, নাজিরপুর উপজেলার শ্রীরামকাঠি-আব্দুল মালেক বেপারী ও দীর্ঘা- আশুতোষ বেপারী এবং জিয়ানগর উপজেলার পত্তাশী-মোয়াজ্জেম হোসেন ও পাড়েরহাট-গোলাম সরোয়ার বাবুল (স্বতন্ত্র)।

চরফ্যাশনে নৌকার দু’জন বিনাভোটে জয়ী

ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলার চরকুকুরি-মুকুরিতে আবুল হাশেম মঞ্জু (নৌকা) বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায়, দৌলতখানের ভবানীপুরে গোলাম নবী নবু (নৌকা) বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায়।

কক্সবাজারে নৌকা ৭, বিএনপি ৩, স্বতন্ত্র ৭

কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার চাকমারকুলে নূরুল ইসলাম সিকদার (নৌকা), ফতেখাঁরকুলে ফরিদুল আলম (নৌকা), জোয়ারিয়ানালায় কালাম শামসুদ্দিন (নৌকা), খুনিয়াপালংয়ে আব্দুল মাবুদ (নৌকা), রাজারকুলে মফিজুর রহমান (স্বতন্ত্র), দক্ষিণ মিঠাছড়িতে ইউনুস ভুট্ট (স্বতন্ত্র)। উখিয়া উপজেলার হলদিয়াপালংয়ে শামসুল হক বাবুল (বিএনপি), জালিয়াপালংয়ে নূরুল আমিন চৌধুরী (বিএনপি), রাজাপালংয়ে জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী (নৌকা), রত্নাপালংয়ে খায়রুল আলম চৌধুরী (স্বতন্ত্র), ফালংখালীতে আব্দুল গফুর (স্বতন্ত্র)। কক্সবাজার সদর উপজেলার চৌফলদণ্ডীতে উয়াত করিম বাবুল (নৌকা), ঈদগাঁওয়ে সৈয়দ আলম (স্বতন্ত্র), ইসলামপুরে আবুল কালাম (বিএনপি), ইসলামাবাদে নূর ছিদ্দিক (স্বতন্ত্র), জালালাবাদে ইমরুল হাসান রাশেদ (নৌকা), পোকখালীতে রফিকুল ইসলাম (স্বতন্ত্র)।

কুমিল্লায় নৌকা ৩৪, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী ১০ ও বিএনপি ১টিতে

কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার ভুলুইন উত্তর আবদুর রহিম (নৌকা), ভুলুইন দক্ষিণ একরামুল হক (নৌকা), বাগমারা উত্তর আবুল কাসেম (নৌকা), বাগমারা দক্ষিণ আবু তাহের মজুমদার (নৌকা), বিজয়পুর খোরশেদ আলম (নৌকা), বেলঘর উত্তর আবুল খায়ের (নৌকা), ও বেলঘর দক্ষিণ ইউপিতে আবদুল মান্নান (নৌকা)। নাঙ্গলকোট উপজেলার ২টি ইউনিয়নের মধ্যে পেরিয়া ইউপিতে হুমায়ুন কবির মজুমদার (নৌকা), ও হেসাখাল ইউপিতে জালাল আহমেদ ভূঁইয়া (নৌকা)। দেবিদ্বারের ৩টি ইউপি’র মধ্যে গুনাইঘর উত্তর খোরশেদ আলম (নৌকা), গুনাইঘর দক্ষিণ আবদুল হাকিম (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) ও বরকামতা নুরুল ইসলাম (নৌকা)। দাউদকান্দি উপজেলার ১২টি ইউপি’র মধ্যে গৌরীপুর ইউপিতে আবুল হাসেম সরকার (নৌকা), মোহাম্মদপুর মজিবুর রহমান (বিএনপি), মালিগাঁও নুরুল ইসলাম (নৌকা), ইলিয়টগঞ্জ উত্তর জসিম উদ্দিন (নৌকা), জিংলাতলী আলমগীর হোসেন (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), সুন্দলপুর মাসুদ আলম (নৌকা), মারুকা খলিলুর রহমান তালুকদার (নৌকা), বিটেশ্বর খোরশেদ আলম (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), গোয়ালমারী নুরুল আলম (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), পদুয়া বাবুল তালুকদার (নৌকা), পাঁচগাছিয়া জামাল উদ্দিন চৌধুরী (নৌকা) ও দাউদকান্দি উত্তর আবদুস সালাম (নৌকা)। মুরাদনগরের ২১টি ইউপির মধ্যে শ্রীকাইল ইউপিতে নজরুল ইসলাম (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), আকবপুর বাবুল হোসেন মোল্লা (নৌকা), আন্দিকোট ওমর ফারুক (নৌকা), রামচন্দ্রপুর উত্তর ছফু মিয়া (নৌকা), রামচন্দ্রপুর দক্ষিণ আবদুল লতিফ (নৌকা), যাত্রাপুর আবুল কালাম আজাদ (নৌকা), বাঙ্গরা পশ্চিম রুহুল আমিন (নৌকা), বাঙ্গরা পূর্ব আবদুল মান্নান (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), পূর্বধইর পূর্ব বনকুমার শিব (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), পূর্বধইর পশ্চিম শরিফুল ইসলাম (নৌকা), চাপিতলা আবদুল কাইয়ুম ভূঁইয়া (নৌকা), টনকি জাকির হোসেন (নৌকা), নবীপুর পূর্ব কাজী আবুল খায়ের (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), নবীপুর পশ্চিম কামাল উদ্দিন (নৌকা), ধামঘর আবুল হাসেম (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), দারোরা শাহজাহান (নৌকা), বাবুটিপাড়া জাকির হোসেন মুন্সী (নৌকা), পাহাড়পুর আবদুস সামাদ মাঝি (নৌকা), ছালিয়াকান্দি আবু মুছা সরকার (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী), জাহাপুর শফিকুল ইসলাম (নৌকা) ও কামাল্লা ইউপিতে ফিরোজ খান (নৌকা)।

চট্টগ্রামে নৌকা নৌকা ১৮, স্বতন্ত্র ৩

চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলার শোভনদণ্ডী ইউনিয়নে এহসানুল হক (নৌকা)। সাতকানিয়া উপজেলার খাগরিয়ায় আক্তার হোসেন (নৌকা), কাঞ্চনায় রমজান আলী (নৌকা), এওচিয়ায় নজরুল ইসলাম মানিক (নৌকা), মাদার্শায় আনম সেলিম (নৌকা), কালিয়াইশে হাফেজ আহমেদ (নৌকা), ধর্মপুরে ইলিয়াছ চৌধুরী (নৌকা), সাতকানিয়া সদরে নেজাম উদ্দিন (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহ)। লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়ায় মোহাম্মদ জোনায়েদ (স্বতন্ত্র), পদুয়ায় মো. জহিরউদ্দিন (স্বতন্ত্র), চরম্বায় মো. শফিকুর রহমান (নৌকা), কলাউজানে মো. আব্দুল ওয়াহেদ (নৌকা), পুটিবিলায় মো. ইউনুচ (নৌকা), চুনতিতে মো. জয়নুল আবদীন (নৌকা)। মিরেরসরাই উপজেলার মায়ানীতে কবির আহম্মদ নিজামী (নৌকা), খইয়াছরায় জাহেদ ইকবাল চৌধুরী (নৌকা), ওয়াহেদপুরে ফজলুল কবির ফিরোজ (নৌকা), মঘাদিয়া, মিঠানালা, হাইতকান্দি, করেরহাট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে শুধু মাত্র মেম্বার পদে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। করেরহাটে মেম্বার ও চেয়ারম্যান পদে সবাই বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে ভোটের প্রয়োজন হয়নি।

চাঁদপুরে নৌকা ৪, বিদ্রোহী ২

চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার কলাকান্দায় শুভা মিয়া (নৌকা) (বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), গজরায় হানিফ দর্জি (নৌকা) বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায়। শাহারাস্তি উপজেলার টামটা (উ.), মো. ওমর ফারুক দর্জি (আওয়ামীগ বিদ্রোহী), ঢামটা (দ.) মো. জহিরুল আলম ভুইয়া (নৌকা), মেহের (উ.) মো. মনির হোসেন (নৌকা), মেহের (দ.) সফি আহমেদ মিন্টু (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী)।

নোয়াখালীতে নৌকা ৮ ও ২টি স্থগিত

নোয়াখালী জেলার নোয়াখালী সদর উপজেলার বিনোদপুর (৯টির মধ্যে ৪টি কেন্দ্র স্থগিত), চরমটুয়ায় কামাল উদ্দিন বাবলু (নৌকা), দাদপুরে দেলোয়ার হোসেন (নৌকা), এওজবালিয়ায় আব্দুর জায়ের (নৌকা), কাদিরহানিফে রহিম চৌধুরী (নৌকা), কালাদরাপে মিজানুর রহমান (নৌকা), নেয়াজপুর (৯টির মধ্যে ৫টি কেন্দ্র স্থগিত), পূর্ব চরমটুয়ায় নূরুল আলম (নৌকা), আন্ডারচরে আলী হায়দার বকশি (নৌকা), অশ্বদিয়ায় গোলাম হোসেন বাবলু (নৌকা)।

ফেনীতে নৌকা ১৫

ফেনী সদর উপজেলার শর্শদী ইউনিয়নে মো. জানে আলম, কাজিরবাগ অ্যাডভোকেট কাজী সোহাগ বুলবুল, ফাজিলপুরে মজিবুল হক রিপন,পাঁছগাছিয়ায় আনোয়ার হোসেন মানিক, কালিদহে দিদারুল হক দিদার ও মোটবীতে হারুনুর রশীদ।

সোনাগাজী উপজেলার মঙ্গলকান্দিতে মোশারফ হোসেন বাদল, মতিগঞ্জে রবিউজ্জামান বাবু, সোনাগাজী সদরে শামসুল আরেফিন, চরদরবেশে নুরুল ইসলাম ভুট্টো, চরমজলিশপুরে এম এ হোসেন, বগাদানায় ইসহাক খোকন ও নবাবপুরে দেলোয়ার হোসেন, আমিরাবাদে জহিরুল আলম জহির ও চরচান্দিয়ায় মোশারফ হোসেন মিলন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ উপজেলার আশুগঞ্জ ইউপিতে মো. সালাহউদ্দিন (নৌকা)।

রাঙ্গামাটিতে নৌকা ১৩, জেএসএস ২৪, ইউপিডিএফ ৮, বিএনপি ১, স্বতন্ত্র ১

রাঙ্গামাটি সদর উপজেলার বন্দুকভাঙ্গায় বরুণ কান্তি চাকমা (জেএসএস), বালুখালীতে বিজয় গিরি চাকমা (জেএসএস), জীবতলীতে সুদত্ত বিকাশ কার্বারী (জেএসএস), মগবানে বিশ্বজিত্ চাকমা (জেএসএস), কুতুকছড়িতে কানন চাকমা (ইউপিডিএফ), সাপছড়িতে মৃণাল কান্তি চাকমা (জেএসএস)। বরকল উপজেলার বড় হরিণায় লীলাময় চাকমা (জেএসএস), ভুষণছড়ায় মামুনুর রশীদ মামুন (আ’লীগ), আইমাছড়ায় অমর কুমার চাকমা (জেএসএস), বরকল সদরে কমলেন্দু বিকাশ চাকমা (জেএসএস), সুবলংয়ে তরুণ জ্যোতি চাকমা (জেএসএস)। নানিয়ারচর উপজেলার সাবেক্ষ্যংয়ে সুশীল জীবন চাকমা (ইউপিডিএফ), নানিয়ারচর সদরে জ্যোতিলাল চাকমা (ইউপিডিএফ), বুড়িঘাটে প্রমোদ খীসা (ইউপিডিএফ), ঘিলাছড়িতে অমরকান্তি চাকমা (ইউপিডিএফ)। বাঘাইছড়ি উপজেলার আমতলীতে মো. রাসেল আহমেদ (আ’লীগ), রূপকারীতে শ্যামল কান্তি চাকমা (আ’লীগ), মারিশ্যায় মানবজ্যোতি চাকমা (জেএসএস), সাজেকে ন্যানসন চাকমা (ইউপিডিএফ), খেদারমারায় সন্তোষ কুমার চাকমা (জেএসএস), সারোয়াতলীতে তুষার কান্তি চাকমা (জেএসএস), বঙ্গলতলীতে জ্ঞানজ্যোতি চাকমা (ইউপিডিএফ), বাঘাইছড়ি সদরে সুনীল বিহারী চাকমা (জেএসএস)। কাউখালী উপজেলার ফটিকছড়িতে ধন কুমার চাকমা (ইউপিডিএফ), বেতবুনিয়ায় খুইসাবাই মারমা (আ’লীগ), কলমপতিতে ক্যজাই মারমা (আ’লীগ)।

কাপ্তাই উপজেলার চিত্মরম ইউপিতে ক্যইসা অং মারমা (জেএসএস), কাপ্তাই সদরে প্রকৌশলী আবদুল লতিফ (আ’লীগ), ওয়াগ্গায় চিরঞ্জিত তঞ্চঙ্গ্যা (আ’লীগ), রাইখালীতে সাইমং মারমা (জেএসএস)। জুরাছড়ি উপজেলার বনযোগীছড়ায় সন্তোষ বিকাশ চাকমা (জেএসএস), জুরাছড়ি সদরে ক্যানন চাকমা (জেএসএস), দুমদুম্যায় শান্তিরাজ চাকমা (জেএসএস), মৈদংয়ে সাধনানন্দ চাকমা (জেএসএস)। বিলাইছড়ি উপজেলার বিলাইছড়ি সদরে সুনীল কান্তি দেওয়ান (জেএসএস), কেংরাছড়িতে অমরজীবন চাকমা (জেএসএস), ফারুয়ায় বিদ্যালাল তঞ্চঙ্গ্যা (আ’লীগ)। লংগদু উপজেলার লংগদু সদরে কুলিন মিত্র চাকমা (স্বতন্ত্র), আটারকছড়ায় মঙ্গল কান্তি চাকমা (জেএসএস স্বতন্ত্র), মাইনীমুখে আবদুল বারেক সরকার (আ’লীগ), গুলশাখালীতে আবু নাসের (বিএনপি), বগাচত্বরে আবদুর রশীদ (আ’লীগ), ভাসান্যাদমে- হজরত আলী (আ’লীগ), কালাপাকুজ্যায় মোস্তফা মিয়া (আ’লীগ)। রাজস্থলী উপজেলার ঘিলাছড়িতে সুশান্ত প্রসাদ তঞ্চঙ্গ্যা (জেএসএস), গাইন্দ্যায় উথান মারমা (জেএসএস), বাঙ্গালহালিয়ায় নিউমং মারমা (আ’লীগ)।

লক্ষ্মীপুরে নৌকা ৪, ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন ১

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চররমণীমোহনে মো. আবু ইউসুফ (নৌকা)। কমলনগর উপজেলার-চরকাদিরা ইউনিয়নে খালেদ মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ (ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন)। রামগঞ্জ উপজেলার-নোয়াগাঁও ইউনিয়নে মোহাম্মদ হোসেন রানা (নৌকা), ভাদুরে মো. জাহিদ হোসেন (নৌকা), দরবেশপুরে মো. মিজানুর রহমান (নৌকা), ভোলাকোটে ২টি ও ভাটরায় ৫টি কেন্দ্র স্থগিত থাকায় ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জে আওয়ামী লীগ ১৭, বিদ্রোহী ১

সিরাজগঞ্জের ১৮টি ইউনিয়নের মধ্যে ১৭টিতে আওয়ামীলীগ সমর্থিত ও একটিতে দলটির বিদ্রোহী প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। বিজয়ীরা হলেন- উল্লাপাড়া উপজেলার সলপ ইউনিয়নে ইঞ্জিঃ শওকত হোসেন, বড় পাঙ্গাসীতে হুমায়ন কবীর লিটন, বাঙালাতে সোহেল রানা, কয়রাতে হেলাল উদ্দিন হেলাল, পঞ্চক্রশিতে ফিরোজ আহমেদ, মোহনপুরে শক্তি মির্জা, পুর্নিমাগাঁতীতে আলহাজ্ব খলিলুর রহমান, রামকৃষ্ণপুরে রফিকুল ইসলাম হিরু, হাটিকুমরুলে হেদায়েতুল আলম, উল্লাপাড়া সদর ইউনিয়নে আবু সালেক, দুর্গানগরে আফসার আলী ও উধুনিয়ায় আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী আব্দুল জলিল নির্বাচিত হয়েছেন। চৌহালীর ঘোরজানে রমজান আলী, খাসপুখুরিয়াতে আব্দুল মজিদ সরকার, স্থল ইউনিয়নে নজরুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন। কাজিপুর উপজেলার কাজিপুর সদর ইউনিয়নে টি এম আতিকুর রহমান ও শাহজাদপুর উপজেলার কৈজুরী ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের সাইফুল ইসলাম বিজয়ী হয়েছেন।

নাটোরে আওয়ামী লীগ ৯, বিদ্রোহী ১

নাটোরের ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে নয়টিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ও একটিতে বিদ্রোহী প্রার্থী জয় পেয়েছে। বাগাতিপাড়ার চারটি ইউনিয়নেই চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। তারা হলেন- জামনগরে আব্দুল কুদ্দুস, বাগাতিপাড়া সদর ইউনিয়নে মজিবুর রহমান, ফাগুয়াড় দিয়াড় ইউনিয়নে অধ্যক্ষ জহুরুল ইসলাম। এর আগে দয়ারামপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মাহাবুর ইসলাম মিঠু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। গুরুদাসপুরে ছয় ইউনিয়নের পাঁচটিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এবং একটিতে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এরমধ্যে বিয়ারঘাট ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের অধ্যাপক মোজাম্মেল হক, খুবজীপুর ইউনিয়নে মনিরুল ইসলাম দোলন, মশিন্দা ইউনিয়নে মোস্তফিজুর রহমান, ধারাবারিষা ইউনিয়নে আব্দুল মতিন মাষ্টার, চাপিলা ইউনিয়নে আলাল উদ্দিন ভুট্টু এবং নাজিপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শওকত রানা লাবু বিজয়ী হয়েছেন।

নওগাঁয় আওয়ামী লীগ ১৮, স্বতন্ত্র ৮ ও বিএনপি ৪

নওগাঁর তিনটি উপজেলার ৩০ ইউনিয়নের মধ্যে ১৮টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ প্রার্থীরা জয়ী হয়েছে। ৮টিতে স্বতন্ত্র এবং ৪টিতে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। নওগাঁ সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০জন আ’লীগ, ১জন আ’লীগ স্বতন্ত্র ও ১ জন বিএনপি চেয়ারম্যান প্রার্থী জয়লাভ করেন। জয়ী প্রার্থীরা হলেন- শিকারপুরে ময়নুল হক (স্বতন্ত্র), বোয়ালিয়াতে হাসানুল আল মামুন (আ’লীগ), তিলকপুরে রোজাউল করিম (আ’লীগ), কীর্ত্তিপুরে আতোয়ার রহমান (আ’লীগ), চন্ডিপুরে বেদাররুল ইসলাম (আ’লীগ), শৈলগাছীতে আব্দুল গফুর সরদার (আ’লীগ), হাঁপানিয়াতে আফরাফ আলী (আ’লীগ),বলিহারে আফতাব আলী (আ’লীগ), হাসাইগাড়ীতে আব্দুল জলিল (আ’লীগ), বক্তারপুরে মোরসেদুল আলম (আ’লীগ), বর্ষাইলে মো: সামছুজ্জোহা (আ’লীগ) এবং দুবলহাটিতে আনিছুর রহমান (বিএনপি)। বদলগাছী উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪জন আওয়ামী লীগ, ২জন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও ২ জন বিএনপি স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জয়লাভ করেন। জয়ী প্রার্থীরা হলেন, সদরে আব্দুস সালাম মন্ডল (স্বতন্ত্র), বালুভরায় শেখ ্আয়েন উদ্দীন (আ’লীগ), কোলাতে এসকেন্দার মির্জা বাচ্ছু (স্বতন্ত্র), বিলাশবাড়ীতে সাইদুর রহমান কেটু (স্বতন্ত্র), মথুরাপুর আব্দুর রহমান (আ’লীগ), পাহাড়পুর আবু হাসনাত মোঃ মিজানুর রহমান (আ’লীগ), মিঠাপুর মো: ফিরোজ হোসেন (আ’লীগ), আধাইপুর জাকির হোসেন চৌধুরী (স্বতন্ত্র)। মহাদেবপুর উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪জন আ’লীগ, বিএনপি-৩জন, ২জন আ’লীগ স্বতন্ত্র ও ১জন বিএনপি স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী জয়লাভ করেন। জয়ী প্রার্থীরা হলেন- সফাপুরে শামসুল হক (বিএনপি), উত্তরগ্রামে আবিদ হোসেন (স্বতন্ত্র), চেরাগপুরে শিবনাথ মিশ্র(আ’লীগ), ভীমপুরে রামপ্রসাদ ভদ্র(বিএনপি), রাইগাঁতে মঞ্জুর আলম ( আ’লীগ), এনায়েতপুর রফিকুল ইসলাম(স্বতন্ত্র), চান্দাশে মাহমুদান নবী (স্বতন্ত্র), সদর মাহবুবুর রহমান ধলু(আ’লীগ), খাজুরতে বেলাল উদ্দীন ( আ’লীগ), হাতুড়ে এনামুল হক মন্ডল (বিএনপি)।

পাবনার চাটমোহরে আওয়ামী লীগ ১০, বিএনপি ১, স্বতন্ত্র ৫

পাবনার চাটমোহর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ৪টিতে, বিএনপি ১টি এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা ১টি ইউনিয়নে জয়লাভ করেন। আওয়ামী লীগের বিজয়ীরা হলেন- গুনাইগাছা ইউনিয়নে মোঃ নুরুল ইসলাম, হরিপুর ইউনিয়নে মোঃ মকবুল হোসেন, নিমাইচড়া ইউনিয়নে প্রকৌশলী কামরুজ্জামান খোকন ও ছাইকোলা ইউনিয়নে মোঃ নজরুল ইসলাম। হান্ডিয়ালে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ জাকির হোসেন (ঘোড়া) এবং বিলচলন ইউনিয়নে বিএনপির মোহাম্মদ আলী জয় পেয়েছেন। পারবনা সদরের ১০ ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগ ৬টিতে ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ৪টিতে জয় পেয়েছে। আওয়ামী লীগের জয়ীরা হলেন- মালঞ্চীতে আবদুল আলিম (আওয়ামী লীগ), ভাঁড়াড়ায় আবু সাইদ খান (আওয়ামী লীগ), আতাইকুলা খন্দকার আতিয়ার রহমান (), গয়েশপুরে মোতাহার হোসেন, দাপুনিয়ায় আবদুল লতিফ , চরতারাপুরে রবিউল ইসলাম টুটুল। স্বতন্ত্র নির্বাচিতরা হলেন- মালিগাছায় শরিফুল ইসলাম শরিফ, দোগাছীতে আলী হাসান, হিমাইতপুরে আলাউদ্দিন মালিথা ও সাদুল্লাপুরে আবদুল কুদ্দুস মুন্সী।

রাজশাহীর বাঘায় আওয়ামী লীগ ৭, স্বতন্ত্র ৫ ও বিএনপি ৪

রাজশাহীর বাঘায় তিনটি ইউনিয়নের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ২টি ও দলটির বিদ্রোহী প্রার্থী একটি ইউপিতে জয় পেয়েছে। আওয়ামী লীগের নির্বাচিতরা হলেন- আড়ানীতে রফিকুল ইসলাম, বাউসায় শফিকুল ইসলাম। চকরাজাপুর ইউনিয়নে আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আজিজুল আলম জয় পেয়েছেন।

পবা উপজেলার ৭ ইউপির ২টিতে আওয়ামী লীগ, দুইটিতে বিএনপি, দুইটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও একটিতে জামায়াত চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। হরিপুর ইউপিতে বজলে রেজভী আল হাসান মুঞ্জিল (আওয়ামী লীগ), দর্শনপাড়া ইউপিতে কামরুল হাসান রাজ (আওয়ামী লীগ), হুজরিপাড়া ইউপিতে আকতার ফারুক (স্বতন্ত্র), পারিলা ইউপিতে সাইফুল বারী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী), হরগ্রাম ইউপিতে আবুল কালাম আজাদ (জামায়াত), বড়গাছি ইউপিতে সোহেল রানা (বিএনপি) ও দামকুড়াহাট ইউপিতে আব্দুস সালাম (বিএনপি)। মোহনপুর উপজেলার ৬ ইউপির ৩টিতে আওয়ামী লীগ, একটিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী ও দুইটিতে বিএনপির প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। মৌগাছি ইউপিতে আল আমিন বিশ্বাস (আওয়ামী লীগ), ঘাসিগ্রাম ইউপিতে আজারুল ইসলাম বাবলু (আওয়ামী লীগ), বাকশিমইল ইউপিতে আল মমিন শাহ গাবরু (আওয়ামী লীগ), ধুরইল ইউপিতে মো. কাজিমুদ্দিন (বিএনপি), জাহানাবাদ ইউপিতে এমাজ উদ্দীন খাঁন (বিএনপি) এবং রায়ঘাটি ইউপিতে খলিলুর রহমান (আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র) প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

বগুড়ায় আওয়ামী লীগ আওয়ামী লীগ ৯, বিএনপি ৯, স্বতন্ত্র ২টি

বগুড়ার ২১টি ইউনিয়নের মধ্যে ৯টিতে আওয়ামী লীগ, ৯টিতে বিএনপি এবং দুইটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয় পেয়েছেন। আওয়ামী লীগের জয়ীরা হলেন- সোনাতলা উপজেলার বালুয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী রুহুল আমিন বিজয়ী হন। বগুড়া সদর উপজেলায় ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০টির ফলাফল পাওয়া গেছে। এরুলিয়া ফলাফল স্থগিত। এর মধ্যে আওয়ামী লীগ ৪টি, বিএনপি ৫টি এবং ১টি স্বতন্ত্র। বিএনপির জয়ীরা হলেন-নামুজায় রাসেল মামুন, লাহিড়ীপাড়ায় মাপতুন আহমেদ, নিশিন্দারায় শহিদুল ইসলাম, রাজাপুরে জাহিদুল ইসলাম ও সাবগ্রামে আবু সালেহ নয়ন। আওয়ামী লীগের জয়ীরা হলেন- নুনগোলায় আলিমউদ্দিন, গোকুলে শওকতুল ইসলাম সবুজ, শেখেরকোলায় কামরুল হাসান ডালিম ও শাখারিয়ায় শফিকুল ইসলাম। ফাঁপোর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী (জামায়াত) প্রভাষক মহররম আলী জয় পেয়েছেন। শাহজাহানপুর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ ৪, বিএনপি ৪ এবং স্বতন্ত্র ১ (জামায়াত) চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। আওয়ামী লীগের নির্বাচিত চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন- খরনা ইউনিয়নে সাজেদুর রহমান ওরফে শাহিন, গোহাইল আলী আতোয়ার তালুকদার ফজু, খোট্টাপাড়ায় আব্দুল্লাহ আল ফারুক (নৌকা) । বিএনপির বিজয়ীরা হলেন-আড়িয়া ইউনিয়নে আতিকুর রহমা, আমরুল ইউনিয়নে আসাদুজ্জামান অটল, চোপীনগর ইউনিয়নে মোজাফ্ফর রহমান, মাদলায় আতিকুর রহমান। এছাড়া মাঝিড়া ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র্য চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা জামায়াতের আমীর মাওলানা আব্দুস সালাম (টেবিল ফ্যান)। অপরদিকে আশেকপুর ইউনিয়নে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ফিরোজ আলম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জে আওয়ামী লীগ ১

গতকাল জেলার মাত্র একটি ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনে নওয়াবগঞ্জ সদর উপজেলার আলাতুলী ইউপিতে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী কামরুল হাসান।