আজকের দিন তারিখ ১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সারাবিশ্ব বিপর্যস্ত লিবিয়া, ‘মৃত্যুর চেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি’

বিপর্যস্ত লিবিয়া, ‘মৃত্যুর চেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি’


পোস্ট করেছেন: dinersheshey | প্রকাশিত হয়েছে: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২৩ , ৩:১৪ অপরাহ্ণ | বিভাগ: সারাবিশ্ব


দিনের শেষে ডেস্ক : ভয়াবহ বন্যায় বিপর্যস্ত লিবিয়া। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। সমুদ্রে এখনো দুই হাজারের বেশি লাশ ভেসে বেড়াচ্ছে বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। প্রাণহানির সংখ্যা ২০ হাজারের বেশি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। লিবিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় শহর ডেরনার ৩১ বছর বয়সী হিসাবরক্ষক হুসাম আব্দেলগাউই দেশটিতে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি জানান, খারাপ কিছু হতে যাচ্ছে-এমন সম্ভাবনার প্রকাশ পায় সাধারণত কুকুরে চিৎকার থেকে। আর এটা ছিল রাত প্রায় আড়াইটা এবং বাইরে অন্ধকার। সেইদিন রোববার তিনি জেগে ওঠেন ও ঘুম চোখেই নীচে নেমে দেখেন তার পায়ের নীচে পানি। একই ঘরের এক অংশে হুসাম এবং অন্য অংশে তার ছোট ভাই ইব্রাহিম থাকেন। তিনি সামনের ঘরের দরজা খোলা মাত্রই হুড়মুড় করে ঘরে ঢুকে পড়ে বন্যার পানি। দুই ভাই দৌড়ে ঘরের পেছনের দিকে যান। সেখানে গিয়ে তারা অবিশ্বাস্য পরিস্থিতির সম্মুখীন হন, যা তাদের কাছে ছিল ‘মৃত্যুর চেয়েও ভয়াবহ’। আল কুব্বাহ শহর থেকে ফোনে এভাবেই পরিস্থিতির বর্ণনা দিয়েছেন তিনি। শিশু ও নারীরা আমাদের পাশ দিয়ে ভেসে যাচ্ছিল। গাড়ি এবং পুরো ঘর বিদ্যুতায়িত হয়ে পড়েছিল। কিছু মৃতদেহ পানিতে ভাসতে ভাসতে ঘরের মধ্যে ঢুকে পড়ছিল। হুসাম ও ইব্রাহিমক পানির তোড়ে ভেসে যায়। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে তারা প্রায় দেড়শ মিটার দূরে চলে যায়। ২৮ বছর বয়সী ইব্রাহিম বিদ্যুতের ভাসমান তার ধরে একটি খাম্বার কাছে দাঁড়াতে সক্ষম হন, যেখানে তার ভাইও আটকা পড়েছিল। ওই তারকে রশির মতো ব্যবহার করে তারা পার্শ্ববর্তী একটি ভবনের দিকে এগুতে থাকেন এবং তৃতীয় তলার জানালা দিয়ে ঢুকে পড়েন। এরপর পাঁচতলার ছাদে গিয়ে আশ্রয় নেন। আমরা যেখানে ছিলাম সেটি শহরের অন্য এলাকাগুলোর চেয়ে উঁচু এলাকা বলেন হুসাম। তিনি আরও বলেছেন,“নীচু এলাকাগুলোতে আমার মনে হয় না ৫/৬ তলা পর্যন্ত কেউ বেঁচে ছিল। মনে হয় সবাই মারা গেছে। আল্লাহ তাদের ক্ষমা করুন। জাতিসংঘে লিবিয়ার দূত জানিয়েছেন, কমপক্ষে ছয় হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে এবং নিখোঁজ আছে আরও কয়েক হাজার। লিবিয়ায় রেড ক্রিসেন্টের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, মারা গেছে প্রায় ১০ হাজারের মতো মানুষ। অন্যদিকে ডেরনার মেয়র দাবি করেছেন যে সম্ভবত ২০ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। ডেরনার বাইরের অংশে দুই বাঁধ ধসে বন্যার পানি শহরে ঢুকে পড়ায় এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। ডেরনা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছিল এবং মাঝের সবকিছু বিলীন হয়ে গেছে, বলছিলেন ১৮ বছর বয়সী শিক্ষার্থী রাহমা বেন খায়াল। তিনি একটি ভবনের ছাদে আশ্রয় নিয়েছিলেন। যে জলস্রোতে সব ভেসে গেছে তার সূচনা হয়েছিল দিনের শুরুতে হালকা বৃষ্টির মাধ্যমে। শুরুতে এটা কোন ভয়ের বিষয় ছিল না বলে জানিয়েছেন ২৩ বছর বয়সী মেডিকেল শিক্ষার্থী আমনা আল আমিন। তিনি ছোট তিন ভাই-বোনের অভিভাবক। কারণ তাদের বাবা মা আগেই মারা গেছেন। বাইরে যখন বৃষ্টি হচ্ছিল চার ভাই-বোন একটি সাত তলা ভবনের দ্বিতীয় তলায় ছিলেন। তারা গেমস খেলছিলেন কিংবা ফোন নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। তারা তাদের ছোট ভাইকে একটি লাইফ ভেস্ট পড়িয়ে হাস্যরস করছিলেন। কিন্তু রোববার রাত নাগাদ ভারী বৃষ্টিপাত শুরু হল। সাইরেন বাজছিল। তারা আর ঘুমাতে পারছিলেন না। এটা শুরু হলো রাত আড়াইটা নাগাদ। হৈ চৈ জোরালো হলো। আমার ভাই বললো সে রাস্তায় পানি দেখতে পাচ্ছে, ফোনে দেয়া সাক্ষাতকারে বলছিলেন আমনা। বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডেরনা শহরের যে ক্ষতি হয়েছে সেটিও ভয়াবহ। পুরো এলাকাটি ধ্বংস হয়ে গেছে। ত্রিপলিতে লিবিয়ার আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় স্বীকৃত সরকারের পক্ষে মোহাম্মেদ আল মেনফি বলেছেন, তারা অ্যাটর্নি জেনারেলকে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন যে বাঁধ ধসের জন্য কাদের দায় আছে। বিশ্ব আবহাওয়া সংস্থা বলেছে, অনেক মানুষকে বাঁচানো যেত যদি লিবিয়ার আবহাওয়া দপ্তর কার্যকর থাকত। তারা সতর্কতা ইস্যু করতে পারতেন। জরুরি ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ লোকজনকে সরিয়ে আনার চেষ্টা করতে পারত। ফলে অনেক প্রাণহানি এড়ানো যেতো, বলেছেন সংস্থাটির প্রধান পেট্টেরি তালাশে।