আজকের দিন তারিখ ২রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
রাজনীতি ফরিদপুরে রাতেই কানায় কানায় পূর্ণ সমাবেশস্থল

ফরিদপুরে রাতেই কানায় কানায় পূর্ণ সমাবেশস্থল


পোস্ট করেছেন: delwer master | প্রকাশিত হয়েছে: নভেম্বর ১২, ২০২২ , ১১:২০ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: রাজনীতি


দিনের শেষে ডেস্ক : নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনের দাবিসহ বিভিন্ন ইস্যুতে ফরিদপুরে বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ আজ। বেলা ১১টায় ফরিদপুর শহরের উপকণ্ঠে কোমরপুরের আব্দুল আজিজ ইনস্টিটিউশন মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হবে এই বিভাগীয় সমাবেশ। আজ সকাল থেকেই বিভিন্ন জেলা থেকে আসা নেতাকর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে প্রবেশ করেন। রাতেই কানায় কানায় পূর্ণ সমাবেশস্থল। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে নেতাকর্মীদের ঢল। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এছাড়া স্থায়ী কমিটির সদস্য, ভাইস চেয়ারম্যান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্যসহ কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য রাখবেন। ফরিদপুরে সমাবেশের ২ থেকে ৩ দিন পূর্বেই পাঁচটি জেলার হাজার হাজার নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলে অবস্থান নেন। পরিবহন ধর্মঘটের কারণে তারা এই পন্থা অবলম্বন করেছেন। অনেকেই বাড়ি থেকে চিড়া-মুড়ি, কলা নিয়ে সমাবেশস্থলে উপস্থিত হয়েছেন। মাঠের মধ্যে তাঁবু টাঙিয়ে রাতযাপন করেন হাজারো নেতাকর্মী। অনেকে সঙ্গে করে চাদর, কাঁথা, বিছানা নিয়ে এসেছেন। এছাড়া স্থানীয় লোকজনের বাড়ির উঠানে, বারান্দায় রাত কাটিয়েছেন সমাবেশে আগত নেতাকর্মীরা। বিএনপি ফরিদপুর বিভাগীয় সমাবেশটি করার জন্য শহরের সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ মাঠে অনুমতি চেয়েছিল। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুমতি দেয়া হয়নি। পরে শহর থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে কোমরপুর আব্দুল আজিজ ইনস্টিটিউশন মাঠে সমাবেশ করার অনুমতি দেয় ফরিদপুর প্রশাসন । ফরিদপুর মহানগরের আহ্বায়ক এ এফ এম কাইয়ুম বলেন, সমাবেশে বাধা দেয়ার জন্য সরকার বিভিন্ন ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। কিন্তু কোন বাধাই সমাবেশকে ঠেকানো সম্ভব হবে না। এত প্রতিবন্ধকতার পরেও সমাবেশে লক্ষাধিক লোকের সমাগম হবে। দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে জনগণ এই সরকার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে, তারা এ সরকারের পতন চায়। বিএনপি’র ফরিদপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ বলেন, সমাবেশকে কেন্দ্র করে ফরিদপুরের বিভিন্ন জায়গায় আমাদের নেতা কর্মীদেরকে হয়রানি করা হয়েছে। ফরিদপুর জেলার বিভিন্ন জায়গায় নেতা কর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে। আওয়ামী লীগ ফরিদপুর বিভাগকে তাদের নিজেদের বিভাগ বলে মনে করে। কিন্তু আমরা দেখছি ফরিদপুরে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে অসম্ভব রকম সাড়া পড়েছে। প্রতিটি জেলা থেকে সমাবেশস্থলে সাধারণ জনগণ এবং আমাদের সহযোদ্ধারা আসতে শুরু করেছেন। আমাদের নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত, সাধারণ জনগণও বিএনপি নেতৃত্বে জেগে উঠেছে। জ্বালানি তেল ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, দলীয় কর্মসূচিতে গুলি করে নেতা-কর্মীদের হত্যার প্রতিবাদ এবং নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপক্ষে সরকারের দাবিতে বিভাগীয় (দলের সাংগঠনিক বিভাগ) পর্যায়ে সমাবেশ করছে বিএনপি।