আজকের দিন তারিখ ২১ অক্টোবর, ২০২০, মঙ্গলবার, ৫ কার্তিক, ১৪২৭
সর্বশেষ সংবাদ

কে এই মতিন?


পোস্ট করেছেন: admin | প্রকাশিত হয়েছে: জুন ১৩, ২০১৬ , ২:৫৬ অপরাহ্ণ | বিভাগ: সারাবিশ্ব,সারাবিশ্ব লীড


Motiঅনলাইন আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রে ফ্লোরিডার অরল্যান্ডোতে সমকামীদের নৈশক্লাবে হামলাকারীর পরিচয় নিশ্চিত করেছে ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (এফবিআই)।

আফগান বংশোদ্ভূত ওমর মতিন ফ্লোরিডাতেই বাস করতেন। ২০১৩ সালে এফবিআই প্রথম তার সম্পর্কে জানতে পারে।

মতিনের বাবা-মা দুজনেই আফগানিস্তান থেকে আসা। তারা মার্কিন নাগরিকত্ব পেয়েছেন। নিউইয়র্কে জন্ম নেয়া ২৯ বছরের মতিন পরে ফ্লোরিডায় এসে বসবাস শুরু করেন। ২০০৯ সালে ফোর্ট পিয়ের্সে সিতোরা ইউসুফাই নামের এক নারীকে বিয়ে করেন। অনলাইনে তাদের দুজনের পরিচয় হয়েছিল। তবে বিয়ের কয়েক মাসের মাথায় দুজনের বিচ্ছেদ হয়।

প্রাক্তন স্ত্রীর দাবি, মতিন মানসিকভাবে অসুস্থ এবং প্রায়ই তাকে প্রহার করতেন। ওয়াশিংটন পোস্টকে দেওয়া বক্তব্যে সিতোরা বলেন, ‘তিনি স্থির প্রকৃতির ছিলেন না। আমাকে তিনি প্রহার করতেন। বাড়িতে এসেই কাপড় ধোয়া হয়নি কিংবা এ জাতীয় কাজের জন্য আমাকে পেটাতে শুরু করতেন। তিনি ধর্মকর্মের কাছে খুব একটা ঘেষতেন না। তবে নিয়মিত জিমে যেতেন।’

পেশায় মতিন ছিলেন নিরাপত্তারক্ষী। ২০০৭ সালে তিনি নিরাপত্তারক্ষী সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান জিফোরএসে যোগ দেন। নিরাপত্তারক্ষী হিসেবে কাজ করার সুবাদে মতিন সবসময় অস্ত্র বহন করতেন।

এফবিআইয়ের স্পেশাল এজেন্ট রন হপার জানান, আইএসের সঙ্গে মতিনের সম্ভাব্য সন্ত্রাসী সংশ্লিষ্টতা নিয়ে সহকর্মীরা অভিযোগ করলে ২০১৩ সালে প্রথম তারা তার সম্পর্কে জানতে পারেন। ওই সময় এফবিআই মতিনকে দুইবার জেরা করে। তবে কোনো প্রমাণ না পেয়ে তদন্তের ইতি টানা হয়। ২০১৪ সালে আবার মতিনকে জেরা করে এফবিআই। ওই সময় সিরিয়ায় আত্মঘাতী হামলাকারী মার্কিন নাগরিক মনির মোহাম্মদ আবু সালহার সঙ্গে মতিনের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ ওঠে।

তদন্তে এফবিআই আবু সালহার সঙ্গে মতিনের ‘তাৎপর্যপূর্ণ সম্পর্ক’ না পেয়ে তদন্তের ইতি টানে। এফবিআইয়ের নজরদারি সত্ত্বেও মতিনের নাম সন্ত্রাসী তালিকায় ছিলো না।

আগ্নেয়াস্ত্র দপ্তরের মুখপাত্র ট্রেভর ভেলিনর জানিয়েছেন, মতিন গত সপ্তাহে আইনসম্মতভাবে দুটি অস্ত্র কেনেন। ধারণা করা হচ্ছে, এই অস্ত্র দিয়েই শনিবার রাতে নাইটক্লাবে হামলা চালিয়েছেন তিনি।

স্থানীয় সময় শনিবার রাত ২টার দিকে অরল্যান্ডোতে সমকামীদের নাইটক্লাব ‘পালসে’ বন্দুক হামলা চালান ওমর মতিন। এতে নিহত হয়েছেন অর্ধশত। আহত হয়েছেন ৫৩ জন। এর আগে ২৯ বছরের মতিন নাইটক্লাবের ভেতরে প্রবেশ করে নির্বিচারে গুলি ছুড়তে শুরু করেন এবং কিছু লোককে জিম্মি করেন।

প্রায় তিন ঘণ্টা পর পুলিশ জিম্মিদের উদ্ধারের জন্য নাইটক্লাবের ভেতরে প্রবেশ করলে মতিনের সঙ্গে গুলিবিনিময় হয়। এক পর্যায়ে পুলিশের গুলিতে নিহত হন মতিন। হামলার আগে মতিন পুলিশের কাছে ফোন করে জানায়, তার সঙ্গে চরমপন্থী গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

এদিকে রোববার আইএস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তাদের যোদ্ধাই এ হামলা চালিয়েছে।