আজকের দিন তারিখ ১লা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার, ১৭ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সম্পাদকীয় একজন অভিভাবকের প্রয়াণ : তার কর্ম ও সাধনা প্রেরণা জোগাবে

একজন অভিভাবকের প্রয়াণ : তার কর্ম ও সাধনা প্রেরণা জোগাবে


পোস্ট করেছেন: Dinersheshey | প্রকাশিত হয়েছে: এপ্রিল ৩০, ২০২০ , ৯:৫৭ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: সম্পাদকীয়


জাতীয় অধ্যাপক ও সাবেক  তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা জামিলুর রেজা চৌধুরী মঙ্গলবার ভোরে মৃত্যুবরণ করেছেন। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ৩টার দিকে ঘুমের মধ্যে অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরীর সাড়া না পেয়ে তাকে স্কয়ার হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। দেশের প্রকৌশল শিক্ষা ও প্রযুক্তি বিকাশে তিনিই সবচেয়ে অগ্রগণ্য ব্যক্তি ছিলেন। নিজস্ব নগরায়নের সুপরিকল্পনা ও প্রযুক্তি বিকাশে তিনি অসামান্য কাজ করেছেন। একুশে পদক পাওয়া এই শিক্ষককে সরকার ২০১৮ সালে জাতীয় অধ্যাপক হিসেবে নিয়োগ দেয়। তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার প্রয়াণে আমরা শোকাহত এবং পরিবার পরিজনের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। জানা গেছে, সিলেট শহরে জন্মগ্রহণ করেন জামিলুর রেজা চৌধুরী। তিনি ঢাকার সেন্ট গ্রেগরিজ স্কুল থেকে ম্যাট্রিক ও ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। এরপর ১৯৬৩ সালে ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি, ঢাকা থেকে প্রথম বিভাগে বিএসসি পাস করেন। পরে ইউনিভার্সিটি অব সাউদাম্পটান থেকে এমএসসি পাস করে ১৯৬৮ সালে সেখান থেকেই পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। বাংলাদেশে গত কয়েক দশকে যেসব বড় বড় ভৌত অবকাঠামো হয়েছে, তার প্রায় সবগুলোতেই কোনো না কোনোভাবে যুক্ত ছিলেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘদিন অধ্যাপনা করা জামিলুর রেজা চৌধুরী। ১৯৯৩ সালে যাদের হাত দিয়ে বাংলাদেশের ইমারত বিধি তৈরি হয়েছিল, এই সিভিল ইঞ্জিনিয়ার তাদের একজন। দেশের প্রথম মেগা প্রকল্প বঙ্গবন্ধু সেতু নির্মাণে ৫ সদস্যের আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ প্যানেলের চেয়ারম্যান ছিলেন তিনি। আর এখন পদ্মার ওপরে দেশের সবচেয়ে বড় যে সেতু তৈরি হচ্ছে সেই প্রকল্পের আন্তর্জাতিক পরামর্শক প্যানেলেও নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী। ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, কর্ণফুলী টানেলসহ চলমান নানা উন্নয়ন প্রকল্পেও তিনি বিশেষজ্ঞ প্যানেলের নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন। তিনি একাধারে দেশের স্বনামধন্য গবেষক, শিক্ষাবিদ, প্রকৌশলী ও বিজ্ঞানী ছিলেন। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টাও ছিলেন এই শিক্ষাবিদ। তিনি ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের (ইউএপি) উপাচার্যের দায়িত্বে ছিলেন। ১৯৯৬ সালের নির্বাচনের আগে তিন মাসের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা জামিলুর রেজা চৌধুরী। প্রায় ৭০টির মতো গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। নানা ক্ষেত্রে অবদানের জন্য তিনি বহু পুরস্কার ও সম্মাননায় ভ‚ষিত হয়েছেন। ২০১৭ সালে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ক্যাটাগরিতে তাকে একুশে পদক দেয়া হয়। দেশের এই মেধাবী মানুষের চিরবিদায়ে যে ক্ষতি হয়ে গেল তা হয়তো অপূরণীয়ই থেকে যাবে। তার কর্ম আমাদের অনুপ্রাণিত ও সমাজ পরিবর্তনকে সামনে এগিয়ে নিতে সাহায্য করবে। গভীর শ্রদ্ধায় তাকে স্মরণ করছি এবং বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।