আজকের দিন তারিখ ১ মার্চ, ২০২১, সোমবার, ১৬ ফাল্গুন, ১৪২৭
সর্বশেষ সংবাদ
সারাবিশ্ব অভিশংসন শুনানিতে সহিংসতার নতুন ভিডিও

অভিশংসন শুনানিতে সহিংসতার নতুন ভিডিও


পোস্ট করেছেন: dinersheshey | প্রকাশিত হয়েছে: ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২১ , ১১:০৬ পূর্বাহ্ণ | বিভাগ: সারাবিশ্ব


দিনের শেষে ডেস্ক :  সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন আদালতে নতুন সব তথ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করা হয়েছে। আগে দেখা যায়নি এমন সব ছবি ভিডিও চিত্রের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর রেকর্ড উপস্থাপন করে ক্যাপিটল হিলে হামলার ভয়াবহতা তুলে ধরা হয়েছে। বিবিসি। ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে ভয়াবহ হামলার জন্য ট্রাম্পের সরাসরি দায় রয়েছে বলে অভিশংসন আদালতে ডেমোক্র্যাট প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে যুক্তি তুলে ধরা হয়েছে। বুধবার দুপুরে মার্কিন সিনেটের প্রবীণতম সদস্য প্যাট্রিক লেহির সভাপতিত্বে অভিশংসন আদালতের দ্বিতীয় দিনের কার্যক্রম শুরু হয়।

দ্বিতীয় দিনের অভিশংসন আদালতে প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে আগে দেখা যায়নি—এমন সব ছবি-ভিডিও উপস্থাপন করা হয়। ক্যাপিটল হিলের ভেতরের সিসি টিভি ক্যামেরায় ধারণ করা এসব ভিডিও ফুটেজে ৬ জানুয়ারি ট্রাম্পের উগ্রবাদী সমর্থকদের নানা সহিংস কার্যক্রম দেখা যায়। হামলাকালে তারা তখনকার ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স ও স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির নাম ধরে খোঁজ করছিল।

উগ্রবাদীদের হামলা থেকে মাইক পেন্স ও সিনেটর মিট রমনির রক্ষা পাওয়ার কয়েক মুহূর্তের ভিডিও চিত্র দেখা গেছে। কংগ্রেসের যৌথ অধিবেশন চলাকালে এই হামলার মধ্যে দ্রুততার সঙ্গে মাইক পেন্স, ন্যান্সি পেলোসিসহ অন্য বেশ কিছু আইনপ্রণেতাদের কোনো অঘটন ঘটার আগেই অদৃশ্য স্থানে নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়েছিল। প্রসিকিউশন দলের একের পর এক উপস্থাপিত ভিডিও চিত্রে ক্যাপিটল হিলের অভ্যন্তরে নিরাপত্তা রক্ষার তৎপরতা দেখা গেছে। প্রসিকিউশন থেকে বলা হয়েছে, সহিংসতায় অভিযোগে গ্রেপ্তার লোকজন হলফনামা দিয়ে ঘটনার সঙ্গে তাঁদের সম্পৃক্ততা স্বীকার করেছেন। মাইক পেন্স ও ন্যান্সি পেলোসিকে হত্যার উদ্দেশ্যে খোঁজ করার কথা তারা জানিয়েছেন।

সহিংসতায় যোগ দেওয়া লোকজনের এফবিআইয়ের কাছে দেওয়া বক্তব্যও তুলে ধরা হয়েছে অভিশংসন আদালতে। সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প দেশের আইনপ্রণেতাদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছেন বলে প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে আদালতে বলা হয়। একই সঙ্গে বলা হয়, তিনি দেশের দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি ভাইস প্রেসিডেন্টের জীবনকেও বিপন্ন করে তুলেছিলেন।

প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে বলা হয়, ট্রাম্প অনেক আগে থেকেই লোকজনকে প্রস্তুত করে আসছিলেন। আর তার চূড়ান্ত পরিণতিতেই ক্যাপিটল হিলে হামলা হয়। এই হামলার দায় ট্রাম্পের বলে প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে বলা হয়। এসব বিষয় প্রমাণ করার জন্য ট্রাম্পের টুইটসহ সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনও উপস্থাপন করা হয়। কংগ্রেসম্যান জ্যামি রাস্কিন প্রধান অভিশংসন প্রসিকিউটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে অভিশংসন আদালতে বলা হয়, ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে হামলা ও জনবিদ্রোহ ট্রাম্পের নির্দেশেই হয়েছে।

জ্যামি রাস্কিন আদালতে দেওয়া তার বক্তৃতায় বলেছেন, উপস্থাপিত সব তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে বলা যায়, ট্রাম্প এই হামলার পাশে দাঁড়ানো একজন দর্শক ছিলেন মাত্র। ৬ জানুয়ারির হামলা পূর্বপরিকল্পিত ছিল। আর ট্রাম্প এই হামলার জন্য তার সমর্থকদের জড়ো করছিলেন। জ্যামি রাস্কিন বলেন, ৬ জানুয়ারি ট্রাম্প দেশের ‘কমান্ডার ইন চিফ’ হিসেবে তাঁর দায়িত্বকে আত্মসমর্পণ করেন। এদিন তিনি বিদ্রোহের ‘কমান্ডার ইন চিফ’ হিসেবে কাজ করেছেন। প্রসিকিউশন দলের অন্যান্য সদস্যও তাদের বক্তব্যের ফাঁকে ফাঁকে ভিডিও চিত্র, ট্রাম্পের টুইট বার্তা, ক্যাপিটল পুলিশের গোপন নিরাপত্তা বার্তাসহ ট্রাম্পের উগ্র সমর্থকদের তাণ্ডবের তথ্য স্লাইড শোতে প্রদর্শন করেন।

আদালতের দ্বিতীয় দিনের কার্যক্রমে প্রধানত ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলো প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করা হয়েছে। প্রসিকিউশনের তুলে ধরা যুক্তি খণ্ডনের জন্য ট্রাম্পের দুজন আইনজীবী প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। তার আইনজীবী ডেভিড স্কোহেন বলেছেন, ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের খণ্ডন করার জন্য তাঁরা সর্বতোভাবে প্রস্তুত। বুধবার ফক্স নিউজকে তিনি এ কথা বলেন।

দ্বিতীয় দফা অভিশংসন আদালতের কার্যক্রম নিয়ে ট্রাম্প সরাসরি কোনো কথা বলেননি। ফ্লোরিডার মার-এ-লাগো-তে অবস্থান করছেন ট্রাম্প। আদালতের প্রথম দিনের কার্যক্রমে নিজের আইনজীবীদের বক্তব্যে তিনি অসন্তুষ্ট বলে সংবাদ বেরিয়েছে। তবে ট্রাম্পের প্রচারণা উপদেষ্টা জেসন মিলার বুধবার জানিয়েছেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট খুশিমনেই আছেন। তিনি মনে করছেন, অভিশংসনে আনা ডেমোক্র্যাট দলের অভিযোগ সহজেই উড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হবে।

আইনজীবীদের প্রসঙ্গে জেসন মিলার জানিয়েছেন, ট্রাম্প মনে করেন, তার আইনজীবী ডেভিড স্কোহেন অভিশংসন আদালতে তাঁর পক্ষে চমৎকার কথা বলেছেন। অপর আইনজীবী ব্রুস ক্যাস্টর অনেকগুলো ভালো যুক্তি তুলে ধরেছেন বলে ট্রাম্প মনে করছেন। জেসন মিলারসহ রিপাবলিকানদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, অভিশংসন আদালতে ট্রাম্পের খণ্ডিত বক্তব্য উপস্থাপন করা হচ্ছে। এসব বক্তব্য উপস্থাপন করে ট্রাম্পকে ২০২৪ সালের নির্বাচনের জন্য অযোগ্য করতে ডেমোক্র্যাট দলের চেষ্টা সফল হবে না। অভিশংসন বিচার নয়, রাজনৈতিক বিচার কাজ চলছে বলেও রিপাবলিকান দলের পক্ষ থেকে অনুযোগ করা হচ্ছে।

ট্রাম্পের বড় ছেলে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র নিউজম্যাক্স টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর ৬ জানুয়ারির বক্তৃতার যে অংশে ‘দেশপ্রেমিকদের শান্তিপূর্ণ’ প্রতিবাদ করার কথা বলেছিলেন, তা বাদ দিয়ে খণ্ডিত বক্তব্য উপস্থাপন করা হয়েছে। ট্রাম্প হলেন একমাত্র মার্কিন প্রেসিডেন্ট, যার বিরুদ্ধে সিনেটে দ্বিতীয় দফা অভিশংসন বিচার চলছে। ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিশংসন দণ্ড কার্যকর করার জন্য প্রয়োজনীয়সংখ্যক রিপাবলিকানদের সমর্থন পাওয়ার আশা করছেন না ডেমোক্র্যাটরা।

উল্লেখ্য, প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসন প্রস্তাব গ্রহণের সময় ১০ জন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতা ট্রাম্পের বিপক্ষে পক্ষে ভোট প্রদান করেছিলেন। সবকিছু বিবেচনায় নিয়ে সিনেটর রিক স্কট সিনেটের এই অভিশংসন আদালতের কার্যক্রমকে সময়ের অপচয় বলে উল্লেখ করেছেন।